খালেদার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলে দেওয়ার দাবি জানালেন নজরুল

0
70
নজরুল ইসলাম
ছবি: ফাইল ছবি
নজরুল ইসলাম
ছবি: ফাইল ছবি

অবিলম্বে খালেদা জিয়ার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, একটি প্রতিবেদন নিয়ে সরকার এবং সরকারি দলের প্রতিক্রিয়া দেখে প্রমাণ হয় সরকার অস্তিত্ব সংকটে রয়েছে।

মঙ্গলবার বেলা বারোটায় রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের পক্ষ থেকে করা এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ২০০৭ সালের অবৈধ ও অসাংবিধানিক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে মিথ্যা অভিযোগে বেগম জিয়াকে গ্রেপ্তারের পর তার সবগুলো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়। তখন শেখ হাসিনাকেও গ্রেপ্তার করে তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টও জব্দ করা হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে শেখ হাসিনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলে দিলেও বেগম জিয়ার অ্যাকাউন্ট খুলে দেওয়া হয়নি।

নজরুল ইসলাম খান অভিযোগ করে বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার নামে যে ৮টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টের কথা বলা হয়েছে তার ৬টি তে তেমন কোন অর্থ জমা নেই এবং বহু বছর ধরে কোন লেনদেনও হয়না। এছাড়া এনবিআর-র এর কোনো মামলা না থাকা সত্ত্বেও বেগম জিয়ার জব্দ করা কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্টই আজ পর্যন্ত খুলে দেওয়া হয়নি।

বেগম জিয়া বাধ্য হয়েই ভাড়া বাসায় থাকছেন বলেও দাবি করেন তিনি।

তিনি বলেন, “দেশের একজন বিশিষ্ট নাগরিককে সংবিধান স্বীকৃত মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত রাখা হচ্ছে।  এজন্য দুঃখ প্রকাশ করার পরিবর্তে সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে মন্ত্রী ও সরকারদলের নেতারা মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠক এবং জাতীয় সংসদে প্রাসঙ্গিক বিষয়ে ষড়যন্ত্র খোঁজা ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান তিনি।

সংসদীয় রীতি ও শিষ্টাচার অগ্রাহ্য করে সরকারের জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী ও সরকারি দলের নেতারা যেসব মিথ্যা, অপ্রাসঙ্গিক ও নোংরা মন্তব্য করেছেন তার নিন্দা জানানোর কোনো শোভন ভাষা বিএনপির জানা নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বলেন, “বর্তমান সরকারদলের আন্দোলনের ফসল ২০০৭ সালের অবৈধ ও অসাংবিধানিক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে মিথ্যা অভিযোগে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তারের পর তার সবগুলো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়। তখন শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করে তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টও জব্দ করা হয়েছিল। কিন্তু ২০০৮ সালের ডিসেম্বরে নির্বাচনের আগেই শেখ হাসিনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সেই সরকার খুলে দিলেও বেগম জিয়ার অ্যাকাউন্ট খুলে দেওয়া হয়নি।”

সবকিছু স্বচ্ছ ও আইনানুগভাবে পরিচালিত হওয়া সত্ত্বেও সরকারের মন্ত্রী ও নেতারা অহেতুক ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মন্তব্য করে নিজেরাই নিন্দার পাত্র হয়েছেন এমন দাবি করে তিনি বলেন, এটা তাদের রাজনৈতিক দেউলিয়াত্বেরই বহিঃপ্রকাশ।

বিএনপি নাকি নিঃশেষ হয়ে গেছে ক্ষমতাসীনদের এমন মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, বিএনপি নিঃশেষ হয়ে গেলে প্রধানমন্ত্রীসহ সবাই প্রতিদিন সংসদের ভেতরে-বাইরে বিএনপি এবং তার নেতাদের সম্পর্কে কথা বলে সময় নষ্ট করছেন কেন ?

এ সময় তিনি দাবি করেন, আসলে তারা  জনগণের আস্থাভাজন দল বিএনপিকে ভয় পায় এবং সেই ভীতি থেকেই প্রতিনিয়ত তারা প্রলাপ বকে, আর জনগণের ঘৃণা কুড়ায়।

এমআর/এআর