শ্রেণিকক্ষের অভাবে শিক্ষার্থীরা খোলা আকাশের নিচে

0
63
class

classদিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার সনকা দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শত শত শিক্ষার্থীরা খোলা আকাশের নিচে ক্লাস করছে। শ্রেণিকক্ষ ও ব্র্যাঞ্চের অভাবে শিক্ষার্থীদের এভাবেই পাঠদান করাচ্ছে শিক্ষকরা।

১৯৬৮ সালের ৭ জানুয়ারি স্থানীয় শিক্ষানুরাগীরা ২ দশমিক ৬৪ একর জমির ওপরে বাঁশের খুঁটি, বেড়ার চাটাই এবং টিনের চাল দিয়ে যাত্রা শুরু করে বিদ্যালয়টির। ১৭ বছর পর ১৯৮৬ সালে বিদ্যালয়টি সরকারি এমপিও ভুক্তের আওতায় আসে। ২১ গ্রামের একমাত্র উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এটি। যার উন্নয়নের ওপর নির্ভর করে এখানকার শিক্ষার্থীদের ভবিষৎ।

বর্তমানে এই বিদ্যালয়ে ৭৫৫ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ক শাখায় ১১৬ জন, খ শাখায় ৪৯ জন, ৭ম শ্রেণির ক শাখায় ৭৪ জন, খ শাখায় ৪৯ জন, ৮ শ্রেণির ক শাখায় ১০৬ জন, খ শাখায় ৭১ জন, ৯ম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগে ৪২ জন, মানবিক শাখায় ৪৯ জন, ১০ শ্রেণির বিজ্ঞান শাখায় ৪৮ জন, মানবিক শাখায় ৬৬ জন এবং এসএসসি ৮৫ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী ২০টি শ্রেণি কক্ষের প্রয়োজন। কিন্তু ২০টি শ্রেণি কক্ষের বিপরীতে রয়েছে জরাজীর্ণ, কাঁচা ও আধা কাচা ৯টি শ্রেণি কক্ষ। তারপরও ১১টি শ্রেণি কক্ষের অভাব রয়ে গেছে। অন্যদিকে ৭৫৫ জন শিক্ষার্থীদের জন্য ১৮৮ জোড়া ব্রেঞ্চ প্রয়োজন হলেও বিদ্যালয়ে রয়েছে ১শ জোড়া। পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ ও ব্রেঞ্চের অভাবে তাই খোলা আকাশের নিচে ক্লাস করছে শিক্ষার্থীরা।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.ওবাইদুল ইসলাম জানান, সরকারি অনুদানের মাধ্যমে একটি একাডেমিক ভবন নির্মাণের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপালের নিকট লিখিতভাবে আবেদন করা হয়েছে।

কেএফ