‘আনিসুজ্জামান সব জ্ঞানের আধার’

0
80
anisuzzaman

anisuzzamanভারতের তৃতীয় সর্বোচ্চ সন্মানসূচক খেতাব পদ্মপূষণ উপাধি পাওয়ায় অধ্যাপক ড.আনিসুজ্জামানকে সংবর্ধণা দিয়েছে এবি ব্যাংক ও চন্দ্রাবতী একাডেমি।  সোমবার বিকালে রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে তাকে এ সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। অনুষ্ঠানে কথা সাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, এবি ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামিম আহমেদ চৌধুরী এবং চন্দ্রাবতী একাডেমির নির্বাহী পরিচালক কামরুজ্জামান কাজল বক্তব্য রাখেন।এতে সভাপতিত্ব করেন এবি ব্যাংকের চেয়ারম্যান এম. ওয়াহিদুল হক।

অর্থমন্ত্রী বলেন,অধ্যাপক আনিসুজ্জামান একজন প্রাজ্ঞ ব্যক্তি। তিনি সব জ্ঞানের আধার। আর এরই স্বীকৃতি হিসেবে তিনি দেশের বিভিন্ন পদক পেয়েছেন। কিন্তু দেশ তাকে এখনও সর্বোচ্চ পদকটি দেয়নি। খুব শিগগিরই তিনি দেশের এ সর্বোচ্চ পদক পাবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

তিনি আরও বলেন,আনিসুজ্জামানের এ পদক প্রাপ্তিতে বিশ্বে আমাদের মুখ উজ্জ্বল হয়েছে,দেশের মুখ উজ্জ্বল হয়েছে।

আনিসুজ্জামান তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন,এদেশের একজন নাগরিক হিসেবে আমার যেসব সামাজিক দায়িত্ব ছিল তা পালনের চেষ্টা করেছি। এ দায়িত্ব পালক করতে যেয়ে অনেকের কাছে আমাকে কথা শুনতে হয়েছে। কিন্তু আমার কাছে লেখাপড়া ও শিক্ষাকতা যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি আমার সামাজিক দায়িত্ব পালনও সমান গুরুত্বপূর্ণ। আর তাই আমি এ সামাজিক দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করছি।

অনুষ্ঠানে আনিসুজ্জামানকে উত্তরীয় পরিয়ে দেওয়া হয়, হাতে তুলে দেওয়া হয় সংবর্ধনা স্মারক,উপহার দেওয়া হয় তাঁর একটি প্রতিকৃতি এবং গলায় পরিয়ে দেওয়া হয় স্বর্ণপদক।

সেলিনা হোসেন বলেন,একজন মানুষ যখন নিজেকে ছাড়িয়ে যায় তখন তাকে অবহেলা করা সম্ভব হয় না। তেমনই একজন মানুষ অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান। স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করতে তার অবদান অনস্বীকার্য বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, আনিসুজ্জামান কেবল শ্রেণীকক্ষেরই শিক্ষক নন, তিনি জীবনের সব ক্ষেত্রেই শিক্ষকের ভূমিকা পালন করেছেন। সমাজ-রাষ্ট্রের নানা সংকটে তিনি অভিভাবকত্ব দিয়েছেন। সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত থেকেছেন।

কামরুজ্জামান কাজল বলেন,অধ্যাপক আনিসুজ্জামান আমাদের খুব কাছের মানুষ। আমাদের সুখে দুখে সব সময় তাকে পাশে পায়। তার এ পুরস্কার প্রাপ্তিতে আমরা খুবই খুশি।চন্দ্রাবর্তী একাডেমি এমন একটি সংবর্ধনার আয়োজন করতে পেরেও গর্বিত বলে তিনি জানান।

উল্লেখ্য,৩১ মার্চ ভারত সরকার ২৫ জনকে পদ্মভূষণ উপাধিতে ভূষিত করে। এর মধ্যে ভারতীয় আছেন ২২ জন,আমেরিকান ২ জন এবং বাংলাদেশের প্রথম হিসেবে আছেন ড.আনিসুজ্জামান।