জামিনের অর্থ কিস্তিতে প্রদানের আবেদন প্রত্যাহার করল সাহারা

0
74
sahara chief

sahara chiefসুব্রত রায়ের জামিনের জন্য আদালত কর্তৃক নির্দেশিত অর্থ কিস্তিতে প্রদানের আবেদন প্রত্যাহার করল সাহারা। গত সপ্তাহে তার মুক্তির জন্য নির্দেশিত অর্থ প্রদানে অপারগতা জানিয়ে এই আবেদন দাখিল করেছিল সাহারা। শেয়ার জালিয়াতির মামলায় অভিযুক্ত সাহারা প্রধান বর্তমানে ভারতের তিহার জেলে বন্দী হয়ে আছেন।  খবর এনডিটিভির।

প্রায় দুই বছর আগে পুঁজি বাজার থেকে অবৈধভাবে ২৪ হাজার কোটি রুপি মূলধন সংগ্রহ করার অভিযোগে সাহারার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে ভারতের পুঁজি বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড (সেবি)। শুনানি শেষে ভারতীয় আদালত সেবির অভিযোগ সমর্থন করে বিনিয়োগকারীদের অর্থ ফেরত দেয়ার নির্দেশ দেয় সাহারা কর্তৃপক্ষকে।

কিন্তু আদালতের নির্দেশের পরেও বিনিয়োগকারীদের ১৯ হাজার কোটি রুপি ফেরত না দেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গত মঙ্গলবার সুব্রত রায়সহ সাহারা গ্রুপের আরও চার পরিচালককে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেয় ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট।

মায়ের অসস্থতার কারণ দেখিয়ে আদালতে হাজিরা প্রদান থেকে অব্যাহতি আবেদন জানান সুব্রত’র আইনজীবি। কিন্তু সে আবেদন খারিজ করে আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে।

এরই প্রেক্ষিতে লখনৌ পুলিশের কাছে সুব্রত আত্মসমর্পণ করলে আদালত তাকে হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে সাহারার পক্ষ থেকে সুব্রত’র জান্মিনের একাধিক আবেদন পেশ করা হলেও আদালত তা নাকচ করে দেন।

অবশেষে গত ২৬ মার্চ অর্থ সেবি বরারবর অর্থ পরিশোধের শর্তে সুব্রত’র জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। শর্ত অনুযায়ী, কোম্পানি প্রধানের মুক্তির জন্য ৫ হাজার কোটি রুপি নগদ এবং ৫ হাজার কোটি রুপির বন্ড প্রদান করতে হবে সাহারাকে। কিন্তু বিভিন্ন জায়গায় দেন-দরবার করেও ৫ কোটি রুপি জোগাড় করতে ব্যর্থ হয় সাহারা। এরই প্রেক্ষিতে আদালতের কাছে জামিনের অর্থ কিস্তিতে পরিশোধের আবেদন জানায় প্রতিষ্ঠানটি। এসময়  আদালতের কাছে সুব্রত’র জামিনের আগে আড়াই হাজার রুপি নগদ এবং বাকি আড়াই হাজার জামিনের ২১দিন পরে জমাদানের আবেদন জানায়। ধারণা করা হচ্ছিল, এই আবেদন নাকচ করে দিতে পারেন আদালত। তাই আগেভাগে আবেদন প্রত্যাহার করে নিল সাহারা।

প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানাও হয়, সুব্রত রায়ের জামিনের অর্থ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আগামি শুনানি পর্যন্ত অপেক্ষা করবে সাহারা। আগামি ৯ই এপ্রিল এই শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।