৫০০ প্রযুক্তি উদ্যোক্তা সৃষ্টি করা হবে

DCCIঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (ডিসিসিআই)’র ২ হাজার নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টির প্রকল্পের আওতায় ৫০০ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার উদ্যোক্তা সৃষ্টির লক্ষ্যে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ এবং ডিসিসিআইয়ের মধ্যে সমঝোতা স্মারক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

১২ ডিসেম্বর বিকেলে ঢাকার কাকরাইলে আইডিইবি ভবন কাউন্সিল হলে আইডিইবি’র সভাপতি এ কে এম এ হামিদ এর সভাপতিত্বে  চুক্তি স্মারক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিটিভি’র মহাপরিচালক ম. হামিদ। কি নোট পেপার উপস্থাপন করেন বিশেষ অতিথি ডিসিসিআই’র সভাপতি এবং এন্টারপ্রেনিউরশীপ ইনোভেশন এক্সপো’র চেয়ারম্যান মো. সবুর খান।

অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজার,এসএমই-এসপিডি সুকমল সিনহা চৌধুরী। স্বাগত ও সূচনা বক্তব্য রাখেন আইডিইবি’র সাধারণ সম্পাদক মো. শামসুর রহমান।
চুক্তি স্বাক্ষর পূর্ব সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তাগণ বলেন, বাংলাদেশের ন্যায় জনবহুল দেশে শুধুমাত্র চাকরি নির্ভর হয়ে শ্রমবাজারে প্রবেশমুখী দক্ষ জনশক্তির কর্মসংস্থান সম্ভব নয়। এর জন্য বিদ্যমান সুযোগ সুবিধা কাজে লাগিয়ে দক্ষ জনশক্তিকে উদ্যোক্তার ভূমিকায় এগিয়ে আসতে হবে। স্থানীয় কাঁচামাল ও বহি:বিশ্বের চাহিদা বিবেচনায় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প গড়ে তোলা গেলে এদেশের মানুষের কর্মস্পৃহাকে কাজে লাগিয়ে ২০২১ সালের পূর্বেই মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবার সুযোগ রয়েছে।

এ অমিত সম্ভাবনার দিগন্ত খুলে দেবার জন্য সরকারি ও বেসরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে বলেও বক্তাগণ অভিমত ব্যক্ত করেন। তারা উদ্যোক্তার বিকাশের স্বার্থে সম্ভাবনা যাছাই করে পোল্ট্রি, কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, আইটি শিল্পে বিনা জামানতে স্বল্প সুদে ঋণের সুযোগ দেবার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতি আহ্বান জানান।