শিবির সভাপতি গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে

0
67
RU
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

রাবিরাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা শিবিরের সভাপতি আশরাফুল আলম ইমনকে গ্রেপ্তার না করা পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ।

ছাত্রলীগ নেতা রুস্তম আলী নিহত হওয়ার প্রতিবাদে ধর্মঘট কর্মসূচি পালন শেষে শনিবার বিকেল সাড়ে ৪ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়ায় এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ আল তুহিন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে ইসলামী ছাত্র শিবির ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের  একের পর এক আক্রমণ  চালিয়ে যাচ্ছে। তারা শুক্রবার ছাত্রলীগনেতা রুস্তম আলীকে গুলি করে হত্যা করেছে। বিভিন্ন সময়ে রগ কেটে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের পঙ্গুত্বের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

সেই মৌলবাদ শক্তির হুকুম দাতা প্রায় ৪৬ টি মামলা আসামি ইসলামী ছাত্র শিবিরের সভাপতি আশরাফুল আলম ইমনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারেনি। তাকে গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত ছাত্রলীগের এই ধর্মঘট চলবে। তিনি আরও বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে বৈঠক করেছি। তারা আমাদের সহযোগিতার আশ্বাস দিলেও আমরা কর্মসূচি পালন থেকে বিরত থাকব না। আজ রোববার সকাল ১০ টায় কেন্দ্রীয় লাইব্রেরীর পাদদেশে মানববন্ধন কর্মসূচি ও শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ কর্মসূচি পালন করা হবে। এছাড়া দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রলীগের ব্যানারে মৌলবাদী ইসলামী ছাত্র শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করার দাবিতে কর্মসূচি পালন করা হবে।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় ছাত্রলীগের উদ্যোগে দলীয় টেন্ট থেকে  একটি মৌন মিছিল বের করা হয়। এতে যোগ দেন বিভিন্ন বিভাগের সাধারণ শিক্ষার্থীরাও। মৌন মিছিলটি ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় দলীয় টেন্টে গিয়ে শেষ হয়। মৌন মিছিল শেষে ছাত্রলীগ বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য বরাবর ৬ দফা দাবি সম্বলিত একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, ছাত্রলীগ নেতা রস্তুম আলী আকন্দর হত্যাকারীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান, রুস্তমের পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ, ছাত্রলীগ কর্মী ফারুকসহ বিভিন্ন সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের উপর হামলাকারী সন্ত্রাসী ছাত্রশিবির ক্যাডারদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার, ক্যাম্পাসে ছাত্র শিবিরসহ সকল মৌলবাদী সংগঠনের রাজনীতি নিষিদ্ধ, ক্যাম্পাসে সকল ছাত্র-ছাত্রীর নিরাপত্তা নিশ্চিতসহ অবিলম্বে রাকসু ও অন্যান্য বিভাগীয় সমিতির নির্বাচনের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

এদিকে ছাত্রলীগ নেতার নিহতের ঘটনায় প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি পৃথক পৃথক বিবৃতিতে তীব্র নিন্দা ও দোষীদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন। বিবৃতিতে গত শুক্রবার শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী হলে ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ও দুঃখজনক ঘটনায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ও প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ ও নিহতের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেছে। উভয় সংগঠনই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক তারিকুল হাসান বলেন, দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তদন্ত চলছে। ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর রয়েছে।

রাজশাহীর মতিহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ বি এম রেজাউল করিম জানান, এখন পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। ওই ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। পুলিশ তদন্ত করে দোষীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

এমআই/সাকি