ভারত থেকে আসছে আরও ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ

0
93
power-grid.px

power-grid640pxভারতের ত্রিপুরা রাজ্য সরকার বাংলাদেশে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ রপ্তানি করবে। প্রতিবেশী দেশ থেকে ওই পরিমাণ বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে উভয় দেশ নীতিগতভাবে সম্মত হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব মনোয়ার ইসলাম।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর হোটেল রূপসী বাংলায় ভারত-বাংলাদেশের যৌথ স্টিয়ারিং কমিটি অন কো-অপারেশন ইন পাওয়ার সেক্টরের সপ্তম বৈঠক শেষে তিনি এ কথা জানান।

 বিদ্যুৎ সচিব বলেন, ভারতের পাওয়ার মার্কেট থেকে ইতোমধ্যে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি হচ্ছে। আর আজ আরও ১০০ মেগাওয়াট বিদুৎ আমদানির বিষয়ে একমত হয়েছে উভয় পক্ষ।

বিষয়টি চূড়ান্তের বিষয়ে একটি যৌথ কারিগরি কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে্ জানান তিনি। এছাড়া পালাটানা থেকে বিদ্যুৎ আনার বিষয়ে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য পাওয়ারগ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) এবং পাওয়ারগ্রিড কোম্পানি অব ইন্ডিয়াকে (পিজিসিআই) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে গত বুধবার ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠকে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য জরিপ পরিচালনার প্রস্তাব পেশ করা হয়। এ জন্য বাংলাদেশ এবং ভারতের সমানসংখ্যক প্রতিনিধি নিয়ে চার সদস্যর একটি কারিগরি কমিটি গঠন করার কথা বলা হয়।

প্রসঙ্গত, ত্রিপুরার পালটানা কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়টি অনেক দিন থেকে আলোচনায় আছে। ত্রিপুরা সরকারও দীর্ঘদিন থেকে বাংলাদেশকে বিদ্যুৎ দিতে আগ্রহ প্রকাশ করে আসছে। সম্প্রতি মিয়ানমারে অনুষ্ঠিত বিমসটেকের বৈঠকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পালটানা বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বাংলাদেশকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ রপ্তানির আশ্বাস দেন।

সেই ধারাবাহিকতায় গতকাল ৩ দুই দেশের সচিব পর্যায়ের বৈঠকে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়।

এদিকে ইতোমধ্যে ভারত থেকে আমদানি করা মোট ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যু্ক্ত হয়েছে। গত ৩ ডিসেম্বর বেসরকারি ভাবে আসতে শুরু করে  ২৫০ মেগাওয়াট এবং সরকারি ভাবে বাকি ৭৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। এর আগে গত ৫ অক্টোবর ভারত থেকে সরকারি ভাবে ১৭৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসতে শুরু করে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৫ অক্টোবর কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা গ্রিড উপকেন্দ্রে গিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সাথে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিদ্যুৎ আমদানির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।