এনইসি বৈঠকে উঠছে ৫৫ হাজার কোটি টাকার আরএডিপি, প্রাধান্যে সড়ক পরিবহন খাত

0
76

bd-govtসড়ক পরিবহন খাতকে প্রাধান্য দিয়ে ৫৫ হাজার কোটি টাকার সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (আরএডিপি) অনুমোদনের জন্য উঠছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) বৈঠকে । রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে বৃহস্পতিবার  দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে এ বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী ও এনইসি চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনা।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ৫৫ হাজার কোটি টাকার আরএডিপি সরকারি তহবিল থেকে ৩৩ হাজার ৮০০ কোটি এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ২১ হাজার ২০০ কোটি টাকা ব্যয় করার প্রস্তাব করা হচ্ছে।

পরিবহন খাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ খাতের সড়ক পরিবহন, সেতু, রেলওয়ে, নৌ ও বেসামরিক পরিবহনসহ মোট বরাদ্দ দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে ৯ হাজার ৪৫০ কোটি ১৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ৬ হাজার ৯৩৮ কোটি ৮৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। এছাড়া  বৈদেশিক সহায়তা থেকে ২ হাজার ৫১১ কোটি ২৬ লাখ টাকা।

পরিবহন খাতের পর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বিদ্যুৎ খাত। এ খাতে মোট বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ৭ হাজার ৮০৪ কোটি ১১ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৪ হাজার ৫৯৫ কোটি এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ৩ হাজার ২০৯ কোটি ১১ লাখ টাকা।

এদিকে বরাদ্দ অনুযায়ী তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে শিক্ষা ও ধর্ম খাত। এ খাতে ৭ হাজার ১৮৭ কোটি ৮৩ লাখ টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৫ হাজার ৫৭৩ কোটি ৪৬ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ১ হাজার ৬১৪ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

প্রস্তাবিত অন্যান্য খাতে বরাদ্দ হচ্ছে- কৃষি খাতে মোট বরাদ্দ ৩ হাজার ১৮৩ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ২ হাজার ১১০ কোটি ৮৫ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ১ হাজার ৭২ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। পল্লী উন্নয়ন ও পল্লী প্রতিষ্ঠান খাতে মোট ৬ হাজার ৭০ কোটি ১১ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৩ হাজার ৯৪৩ কোটি ৭০ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তার ২ হাজার ১২৬ কোটি ৪১ লাখ টাকা। পানিসম্পদ খাতে মোট বরাদ্দ ১ হাজার ৬৩২ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ১ হাজার ১৮৭ কোটি ৯৪ লাখ এবং বৈদেশিক ৪৪৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

শিল্প খাতে মোট বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ২ হাজার ৭১৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৫২৩ কোটি ৫ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ২ হাজার ১৯৩ কোটি ৮৩ লাখ টাকা।

তৈল, গ্যাস ও প্রাকৃতিক সম্পদ খাতে মোট বরাদ্দ ১ হাজার ৬৪২ কোটি ৬৬ লাখ টাকা টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ১ হাজার ৬৫ কোটি এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ৫৭৭ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ভৌত পরিকল্পনা, পানি সরবরাহ ও গৃহায়ণ খাতে মোট প্রস্তাবিত বরাদ্দ ৪ হাজার ৭২৬ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৩ হাজার ৩১ কোটি ৩১ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ১ হাজার ৬৯৫ কোটি ৫২ লাখ টাকা। ক্রীড়া ও সংস্কৃতি খাতে মোট ২৫৫ কোটি ৯২ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ২৪১ কোটি ২৮ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা ১৪ কোটি ৬৪ টাকা।

স্বাস্থ্য, পুষ্টি, জনসংখ্যা ও পরিবার কল্যাণ খাতে মোট বরাদ্দ ৪ হাজার ১০ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ১ হাজার ৫০৮ কোটি ৮০ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা ২ হাজার ৫০১ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। গণসংযোগ খাতে মোট বরাদ্দ ৮১ কোটি ৯০ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৬৮ কোটি ৯০ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা ১৩ কোটি টাকা। সমাজকল্যাণ, মহিলা বিষয়ক ও যুব উন্নয়ন খাতে মোট বরাদ্দ ৪৪৮ কোটি ৩১ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ২৩৪ কোটি ৪২ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা ২১৩ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। জনপ্রশাসন খাতে মোট বরাদ্দ ১ হাজার ৩১০ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৩৬৬ কোটি ৯ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা ৯৪৪ কোটি ৪৫ লাখ টাকা।

বিজ্ঞান, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে ১ হাজার ৫২১ কোটি ৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ৪৯২ কোটি ২৫ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা ১ হাজার ২৮ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। এ ছাড়া শ্রম ও কর্মসংস্থান খাতে মোট বরাদ্দ ৩৩১ কোটি ৯০ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিলের ২২৪ কোটি এবং বৈদেশিক সহায়তা ১০৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা।

এইচকেবি/