আগামি অর্থবছরে এডিপি ও জিডিপি উভয়ই বাড়ানোর ঘোষণা

0
63
muhit
আবুল মাল আবদুল মুহিত

muhit_7500আসন্ন ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেটে বাড়ছে এডিপি বা বার্ষিক উন্নয়ন প্রকল্পের আকার। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত জানিয়েছেন আগামি ২০১৪ -১৫ অর্থবছরে মোট বার্ষিক উন্নয়ন প্রকল্পের আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ৮০ হাজার কোটি টাকা।  সেই সাথে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধিরও ধারণা দিয়েছেন তিনি।

বুধবার বিকেলে  অর্থমন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আইএমএফ ও এডিবি এবং বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক শেষে তিনি জানান, আসন্ন অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ।

উল্লেখ্য চলতি (২০১৩-১৪) অর্থবছরে বিভিন্ন সংস্থাসহ মোট ৭৩ হাজার ৯৮৪ কোটি  ৪২ লাখ টাকার এডিপি প্রস্তাব করা হয়। তবে সংশোধিত এডিপির জন্য বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ থেকে ৭০ হাজার ২১১ কোটি ২২ লাখ টাকার প্রস্তাব পায় পরিকল্পনা কমিশন। তবে কমিশন শেষ পর্যন্ত এডিপির আকার কেমন করবে তার জন্য আগামিকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

এদিকে অর্থমন্ত্রী ঘোষিত ৭ দশমিক ৩ শতাংশ জিডিপির প্রবৃদ্ধি আসলেই বাস্তবায়ন সম্ভব কিনা তা নিয়ে সংশয় থেকেই যায়। কারণ চলতি অর্থবছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা প্রথমে ৭ দশমিক ২ শতাংশ ধরা হলেও কয়েক ধাপে তা কমে শেষ পর্যন্ত ৬ দশমিক ৫ শতাংশে দাঁড়ায়।

চলতি ২০১৩-১৪ অর্থবছরের বাজেটে দেশের প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা যখন ৭ দশমিক ২ শতাংশ ধরা হয়েছিলো তখন  বিভন্ন সংস্থা ও সংগঠনের পক্ষ থেকে ওই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব নয় বলে বলা হয়। জুলাই মাসে বাজেট ঘোষণার পর বিশ্ব ব্যাংক, এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংকসহ(এডিবি) বেশ কিছু সংস্থা  প্রবৃদ্ধির ঘোষিত হার (৭.২ শতাংশ) অর্জন করা সম্ভব হবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে।

সর্বশেষ জানুয়ারি মাসে  বিশ্ব ব্যাংক তার এক প্রতিবেদনে বলে বছর শেষে প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়াতে পারে ৫ দশিমক ৭ শতাংশ।

এর প্রেক্ষিতে গত ২৪ মার্চ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত জাতীয় সংসদে জানান, চলতি  ২০১৩-১৪  অর্থবছরে জিডিপির লক্ষ্যমাত্রা ৭ দশমিক ২ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৬ দশমিক ৫ শতাংশ হবে।

তবে গত মঙ্গলবার এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ধারণা দেয় চলতি ২০১৩-১৪ অর্থবছরে দেশে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ছয় শতাংশের নিচে থাকলেও আগামি অর্থবছরেই তা ঘুরে দাঁড়াবে।  আর সে বছর প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬ দশমিক ২ শতাংশ।

মঙ্গলবার প্রকাশিত এডিবির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,গত অর্থবছরে বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ-এই দুই ক্ষেত্রেই চ্যালেঞ্জিং অবস্থা থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশে ৬ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে। কিন্তু ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে দীর্ঘকালীন রাজনৈতিক অস্থিরতায় দেশের অভ্যন্তরীণ বাজারের চাহিদা দুর্বল হয়ে পড়েছে। বিনিয়োগকারীদের আস্থায় ফাটল ধরায় বিনিয়োগ কম হয়েছে। অন্যদিকে একই সময়ে বর্হিবিশ্ব থেকে বাংলাদেশে রেমিট্যান্স প্রবাহও কমে গেছে।রাজনৈতিক অস্থিরতার প্রভাবে বছরের বাকী সময়গুলোতে রপ্তানি আয়ও কমতে পারে।

সংস্থাটির প্রতিবেদনে আগামি ২০১৪-১৫ অর্থবছরের জন্য সম্ভাবনময় চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। এতে আশা প্রকাশ করা হয়েছে, আগামি বছর প্রবৃদ্ধিতে নতুন গতির সঞ্চার হবে। তাতে প্রবৃদ্ধির হার বেড়ে দাঁড়াতে পারে ৬ দশমিক ২ শতাংশ।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০০৮-০৯  অর্থবছরে ৫ দশমিক ৭ শতাংশ, ২০০৯-১০ অর্থবছরে ৬ দশমিক ১, ২০১০-১১ অর্থবছরে ৬ দশমিক ৭ ও ২০১১-১২ অর্থবছরে ৬ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল।