বৈশাখের হাওয়া ইলিশের গায়ে

0
67
ইলিশ মাছ
ইলিশ মাছ

Hilsha Fishপহেলা বৈশাখের বাকি আর অল্প কিছুদিন। এরই মধ্যে বাজারে ইলিশ মাছের গায়ে বৈশাখের হাওয়া লাগতে শুরু করেছে। তিন-চারদিনের ব্যবধানে ইলিশের দাম বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। আর এভাবে বাজারে প্রতিদিনই বাড়ছে ইলিশের দাম।

পান্তা ভাত আর ইলিশ মাছ দুটোই বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িয়ে আছে সেই আদিকাল থেকে। সেই সুবাদে ইলিশ মাছ নিয়ে মাছ ব্যবসায়িদের মধ্যে এখন থেকেই চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। সে কৌশল হিসেবেই অনেকে বৈশাখের জন্য ইলিশ মাছ মজুদ করা শুরু করেছে। অতি মোনাফা লাভের আশায় মাছ ব্যবসায়ীরা কোল্ডস্টোরেজ কিংবা ফ্রিজে জমা করে রাখা শুরু করেছে এ মাছ। পাশাপাশি বাজারে ছাড়ছে অল্প কিছু মাছ। আর এসব কারণেই বাড়তে শুরু করেছে ইলিশ মাছের দাম। অনেক ক্রেতাই আশংঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, এ বছর না জানি কত হাজার টাকা হয় এই ইলিশের দাম?

রাজধনীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে প্রায় সকল বাজারেই বাড়তে শুরু করেছে এই ইলিশের দাম। দাম বাড়ার কারণ হিসেবে খুচরা ব্যবসায়ীরা বলেছেন, পাইকারি বাজারে এখন অহরহ মিলছে ইলিশ মাছ। তাহলে বলাই বাহুল্য বৈশাখে অতি মোনাফা লাভের আশায় মজুদ হচ্ছে এ মাছ।

তবে, কারওয়ান বাজারের ‘ভোলা-বরিশাল মৎস্য সমিতি অফিস’এর পরিচালক জহিরুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এ বছর মৌসুমে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়েছে। তাই এখন থেকে বৈশাখের জন্য মৌসুমের ইলিশ মজুদ করে রাখা হয়েছে। আশা করছি এ বছর বৈশাখে  ইলিশের দাম বাড়বে।

তিনি আরও বলেন, এ বছর এককেজি ও তার বেশি ওজনের ইলিশের দাম বৈশাখের বাজারে হতে পারে ১ থেকে দেড় হাজার টাকা।

তবে, কাওরান বাজার পাঁচতারা সমন্বয় মৎস্য আড়ৎদার সমবায় সমিতির সাধারণ-সম্পাদক মো. মোশারফ হোসেন বলেন, মাছের মজুদ মোটামুটি থাকলেও গত বছর অনেক মৎস্য ব্যবসায়ী মাছ মজুদ করে লোকসান গুনেছিল তাই অনেকে এ বছর তেমন মজুদ করেনি।

তিনি আরও বলেন, পহেলা বৈশাখের কারণে এ সময়টায় বরাবরই বাজারে ইলিশের চাহিদা ও মূল্য দুটোই বেশি থাকে।

বাংলার আপামর জনতার একটা ঐতিহ্য হয়ে গেছে ঐ দিন (পহেলা বৈশাখ) তাদেরকে পান্তা আর ইলিশ খেতেই হবে। তাই দামের দিকে লক্ষ না রেখে দাম যতই হোক কিনতে হবে এমন মন মানসিকতাই মাছের দাম বাড়িয়ে দেয় বলে মনে করেন তিনি।

এসএস/এএস