মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন বিদেশি বিনিয়োগকারীরা!

0
84
বিদেশী বিনিয়োগ, foreign investment

বিদেশী বিনিয়োগ, foreign investmentপুঁজিবাজার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন বিদেশী বিনিয়োগকারীরা। ক্রমেই কমে যাচ্ছে তাদের শেয়ার কেনার পরিমাণ। গত মার্চ মাসে তারা আগের মাসের চেয়ে ৩৭ শতাংশ কম শেয়ার কিনেছেন। ফেব্রুয়ারিতে শেয়ার কেনার পরিমাণ কমেছিল ৮ শতাংশ।

এদিকে মার্চ মাসে পুঁজিবাজারে নেট বিদেশী বিনিয়োগ কমেছে ২০ শতাংশ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। অবশ্য এগুলো ডিএসইর মাধ্যমে শেয়ার কেনা-বেচার পরিসংখ্যান। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) মাধ্যমেও কিছু বিনিয়োগ হয়েছে বাজারে। তবে সেখানেও একই ধারা ছিল বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন পোর্টফোলিও ম্যানেজার।

বিশ্লেষকদের মতে, চাপা রাজনৈতিক অস্থিরতা, ঘন ঘন নীতি পরিবর্তন এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের অতিমাত্রায় হ্স্তক্ষেপে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা আস্থাহীনতায় ভুগছেন। তাছাড়া তাদের বিবেচনায় বিনয়োগযোগ্য যেসব শেয়ার রয়েছে তার বেশিরভাগের দাম অনেক বেড়ে গেছে। এতে ভাল রিটার্নের সম্ভাবনা কমে যাচ্ছে। এ কারণে তারা বিনিয়োগ প্রত্যাহার করে নিচ্ছেন। তবে একেবারে এ বাজার ছেড়ে যাবেন না তারা। সাইডলাইনে থেকে বাজার পর্যবেক্ষণ করতে পারেন। পরিস্থিতি কিছুটা ইতিবাচক মনে হলে আবার তারা বিনিয়োগে সক্রিয় হবেন।

পরিসংখ্যান অনুসারে, মার্চ মাসে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা ডিএসইর ব্রোকারহাউজগুলোর মাধ্যমে ২০৫ কোটি ২৭ লাখ টাকার শেয়ার কিনেছেন। আগের মাসে তারা কিনেছিলেন ৩২৭ কোটি টাকা মূল্যের শেয়ার। আর জানুয়ারি মাসে তারা ২০৫ কোটি টাকার শেয়ার কিনেছিলেন।

মার্চে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা ১০৮ কোটি ৩০ লাখ টাকার শেয়ার বিক্রি করেছেন। আগের মাসে তারা ২০৬ কোটি টাকার শেয়ার বিক্রি করেছিলেন।

মার্চ বিদেশী বিনিয়োগকারীদের শেয়ার কেনা-বেচার পরিমাণ দাঁড়ায় ৩১৩ কোটি টাকা। অথচ ফেব্রুয়ারি মাসেও তা ছিল ৫৩৩ কোটি। এক মাসের ব্যবধানে লেনদেন কমেছে ২২০ কোটি টাকার।