বড় পরাজয় নিয়ে বিদায় নিল পাকিস্তান

0
72

T20-World-Cup-2014বাচা-মরার ম্যাচে ওযেস্ট ইন্ডিজের কাছে ৮৪ রানের বড় পরাজয় নিযে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিল সাবেক চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান। নিপূণ বোলিং ও ফিল্ডিং নৈপুণ্য দেখিয়ে চতুর্থ দল হিসেবে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করলো বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

মঙ্গলবার মিরপুরে জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেওয়া ১৬৭ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই খেই হারিয়ে ফেলে  পাকিস্তান। ইনিংসের প্রথম বলে আহমেদ শেহজাদকে হারানোর পর দ্বিতীয় ওভারেও আরেক ওপেনার কামরান আকমল শূন্য হাতেই ‍বিদায় নেন। আর ইনিংসের চতুর্থ ওভারে স্যামুয়েল বাদ্রির দ্বিতীয় শিকার হয়ে বিদায় নেন দলের অন্যতম ব্যাটিং ভরসা উমর আকমল। ফলে ৪ ওভারে মাত্র ৯ রান তুলতেই তিন শীর্ষ উইকেট হারিয়ে মারাত্মক চাপের সম্মুখীন এখন পাকিস্তান। আর এর কিছুক্ষন পর মাত্র ১ রান যোগ করে আবারও স্টাম্পিং হন শোয়েব মালিক। শোয়েব মাকসুদ এসে ভালো সুচনা করলেও তিনিও সেই একই পরিনতি স্টাম্পিং হন। দলীয় ৩৫ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর মাঠে নামেন আফ্রিদা। কিন্তু তিনিও সেই একই স্টাম্পিং এর শিকার হলে পাকিস্তানের স্কোর শেষ হয় ৮২ রানে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্যামুয়েল বাদ্রি ও সুনীল নারিন দুর্দান্ত বোলিং ৩টি করে উইকেট শিকার করেন। এছাড়া এন্ড্রু রাসেল ও স্যান্তুকি ২টি করে উইকেট লাভ করেন।

এর আগে এর আগে  দুই অলরাউন্ডার অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি এবং ডোয়াইন ব্রাভোর সাহসী ব্যাটিংয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৬ রানের চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ গড়ে। ফলে পাকিস্তানের জয়ের লক্ষ্য নির্ধারিত হয় ১৬৭ রান।

অথচ খেলার শুরুর চালচিত্র মোটেও এমনটা ছিল না।বাঁচা-মরার লড়াইয়ে প্রথমে ব্যাট করতে নেমেই বিপর্যয়ে পড়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ। পাক বোলারদের আক্রমণে ২২ রান তুলতেই দুই ওপেনারকে হারায় তারা। এরপর ১০.৪ ওভারে ৬৭ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে ক্যারিবিয়রা। ৮১ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর জুটি বেধে স্যামি এবং ব্রাভো জুটি বেঁধে পাক বোলারদের উপর পাল্টা আক্রমণ চালান। বিশেষ করে খেলার ১৯তম ওভারে তারকা অফ স্পিনার সাঈদ আজমলের করা ওভার থেকে ২৪ রান তুলে নেন এ দুজন।

ব্রাভো মাত্র ২৬ বলে ২ চার ও ৪ ছক্কায় ৪৬ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলে রান আউট হন। আর অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি মাত্র ২০ বলে ৫ চার ও ২ ছক্কায় ৪২ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন। এছাড়াও লেন্ডল সিমন্স ৩১ ও মারলন স্যামুয়েলস ২০ রান করেন।

পাকিস্তানের পক্ষে মোহাম্মদ হাফিজ, সোহেল তানভির, জুলফিকার বাবর ও শহিদ আফ্রিদি প্রত্যেকে একটি করে উইকেট নেন।