জমল না ফ্যামিলি টেক্সের খেলা!

0
69
family tex
ফ্যামিলিটেক্স (বিডি) লিমিটেড লোগো

family texশতভাগ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা দিয়ে চমক দেখিয়েছে বস্ত্র খাতের কোম্পানি ফ্যামিলি টেক্স লিমিটেড। অন্যদিকে এত উচ্চ লভ্যাংশের পরও শেয়ারের দর প্রায় অপরিবর্তিত থাকায় বিষ্মিত হয়েছেন বেশিরভাগ সাধারণ বিনিয়োগকারী। ঘোষিত লভ্যাংশ বাজারে বিদ্যমান গুজবকে ছাড়িয়ে গেলেও, শেয়ারের দর গুজবের ধারে কাছেও যায় নি। মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ফ্যামিলি টেক্সের শেয়ারের দাম বেড়েছে সাড়ে ৩ শতাংশের মত।

সোমবার ১০০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণার পর পুঁজিবাজারকেন্দ্রীক ফেসবুক গ্রুপগুলো দারুণ সক্রিয় হয়ে উঠেছিল। বলা হচ্ছিল-মঙ্গলবার ফ্যামিলি টেক্স নিয়ে দারুণ ‘খেলা’ হবে। তবে প্রথম দিনের খেলা জমে নি। আর তাতে হতাশ অসংখ্য বিনিয়োগকারী।

অবশ্য দিনের শুরুটা ওই ‘খেলা’রই ইঙ্গিত দিয়েছিল। আগের শেয়ারটির ক্লোজিং প্রাই ৫৯ টাকা ৮০ পয়সা হলেও মঙ্গলবার প্রথম লেনদেনটি নিষ্পন্ন হয় ৭৪ টাকা ৮০ পয়সায়, যা আগের দিনের চেয়ে প্রায় ২৫ শতাংশ বেশি। তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই প্রবল বিক্রির চাপে দাম কমতে কমতে ৬২ টাকায় নেমে আসে।

এইদিকে তালিকাভুক্তির পর থেকেই নানাভাবে আলোচনায় থাকা এ কোম্পানির ১০০ শতাংশ বোনাস ঘোষণাকে অনেক বিনিয়োগকারী সন্দেহজনক মনে করেন। তাদের মতে, কোনো অসাধু উদ্দেশ্য থেকেই কোম্পানির উদ্যোক্তারা আয়ের চেয়ে বেশি হারে লভ্যাংশ দিয়েছেন।

উল্লেখ, শুরু থেকেই নানাভাবে বিতর্কের মধ্যে আছে আরএন গ্রুপের সহযোগী এ প্রতিষ্ঠান। তালিকাভুক্তির প্রথম বছরেই কোম্পানিটি লভ্যাংশ না দিয়ে জেড ক্যাটাগরিতে নাম লেখায়। অথচ কোম্পানির প্রকাশিত তথ্য অনুসারে আলোচিত বছরে এটি শেয়ার প্রায় প্রায় ৫ টাকা আয় করে। ২০১৩ সালের প্রথম প্রান্তিকে ইপিএস দেখানো হয় ১ টাকা ১৭ পয়সা। দ্বিতীয় প্রান্তিকে তা নাটকীয়ভাবে ২২৭ শতাংশ বেড়ে ২ টাকা ৯৬ পয়সায় উঠে। তৃতীয় প্রান্তিকে তা নেমে আসে ২ টাকা ৯ পয়সায়। আর চতুর্থ প্রান্তিকে তা কমে হয় ১ টাকা ৪ পয়সা। ইপিএসের ধারাবাহিক পতনের মধ্যই কোম্পানিটি শতভাগ লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

আলোচিত বছরে ফ্যামিলি টেক্স প্রায় ১০০ কোটি টাকা নিট মুনাফা করে। এর পুরোটাকে যদি শেয়ার মূলধনে নিয়ে যাওয়া হয় তাহলেও ঘোষিত লভ্যাংশের জন্য ৭০ কোটি টাকার রিজার্ভ থেকে ৪০ কোটি টাকাকে শেয়ার-মূলধনে রূপান্তর করতে হবে। ভবিষ্যত নিরাপত্তার জন্য তেমন কিছুই অবশিষ্ট থাকবে না এর।

ফ্যামিলি টেক্সের উদ্যোক্তাদের মালিকানাধীন অপর কোম্পানি আরএন স্পিনিং সম্পর্কিত নানা কেলেঙ্কারির কারণে ফ্যামিলি টেক্সের লভ্যাংশ ঘোষণাসহ সব বিষয় বিনিয়োগকারীদের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ। আরএন স্পিনিংয়ের রাইট শেয়ারে নিজেদের অংশের টাকা জমা না দিয়েও এর উদ্যোক্তারা শেয়ার কেনার কথা জানিয়েছিল। এর বিষয়টি প্রমাণ করতে খোদ নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে জমা দেওয়া হয়েছিল ব্যাংকের জাল ডকুমেন্টস। এ অপরাধে উদ্যোক্তাদের জরিমানা করে বিএসইসি।

বাজারে দু’তিন মাস ধরেই শোনা যাচ্ছিল কোম্পানিটি ৭০ শতাংশের বেশি বোনাস লভ্যাংশ দেবে। আর এর উপর ভর করেই জেড ক্যাটাগরির কোম্পানিটির শেয়ারের দাম বাড়ছিল। গুজব ছিল লভ্যাংশের পর শেয়ারের দর উঠবে ৮০ থেকে ৯০ টাকায়। আর এই শেয়ারের মুনাফার টাকায় আরএন স্পিনিংয়ের নিজেদের অংশের শেয়ারের টাকা জমা দেবেন তারা।