উচ্চ কর হারে ব্যাহত হচ্ছে ই-কমার্সের বিকাশ

0
74
ই-কমার্স

ই-কমার্সদেশে ক্রমেই বাড়ছে অনলাইনে পণ্য বেচা-কেনা করার প্রবণতা। আর এর সাথে তাল মিলিয়ে বড় হচ্ছে অনলাইন বাজার। তবে উচ্চ কর হারের কারণে কাঙ্ক্ষিত গতিতে বাজারের বিকাশ হচ্ছে না।

সোমবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) মিলনায়তনে ‘দি লেটেস্ট ইন ই-কমার্স’ শীর্ষক সেমিনারে  এখাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা এই কথা বলেন।

সেমিনারটি ইউনিফিক্সের সহযোগিতায় বেসিস এবং  গুগল বিজনেস গ্রুপ (জিবিজি)’র যৌথ উদ্যোগে আয়োজন করা হয়। এ সময় ই-কমার্স ব্যবসার সম্ভাবনা ও অন্তরায় নিয়ে আলোচনা করা হয়।

অনুষ্ঠানে বিক্রয় ডট কম, এখনই ডট কম, আজকের ডিল ডট কম, রকমারি ডট কম, হাংরিনাকি ডট কম, ডিরেক্ট ফ্রেশ বিডি ডট কম, পেজা বাংলাদেশ, রকেট ইন্টারনেট, ফিউচার সলিউশন ফর বিজনেস, চাল ডাল ডট কম, ডালমুদি ডট কম, লালমুদি ডট কম ই-কমার্স ব্যবসায় নিজ নিজ কার্যক্রম উপস্থাপন করেন।

অনুষ্ঠানে বেসিস সভাপতি শামীম আহসান বলেন, এখন দেশের মানুষ অনলাইন কেনা-বেচা সম্পর্কে জানতে পারছে। অনলাইনে কেনা-বেচা করতে তাদের আগ্রহ দিন দিন বাড়ছে। তাই এখন তারা জানার পাশাপাশি পণ্য কেনা-বেচা করছে বলে জানান তিনি।

তবে এই অনলাইন ব্যবসাকে এগিয়ে নিতে মূল্য সংযোজন কর বড় অন্তরায় হিসেবে দাঁড়িয়েছে বলে মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, আমেরিকা, কানাডা, জাপান, সিঙ্গাপুর, জার্মানিতে ই-কমার্স ব্যবসা জনপ্রিয়তা পাওয়ার মূলে ছিল মুসক প্রত্যাহার।

ই-কমার্স ব্যবসার ওপর থেকে মুসক প্রত্যাহারের ফলে ওই সব দেশে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। ক্রেতারা অনলাইনে কেনাকাটা করতে বেশি সুবিধা পেয়েছে  বলে মনে করেন।

তিনি বলেন, যদি বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসায় বড় কোনো পরিবর্তন আনতে হয় তবে এর ওপর থেকে মূল্য সংযোজন কর প্রত্যাহার করতে হবে। আর এটা প্রাথমিকভাবে ১০ বছরের জন্য প্রত্যাহার করার দাবিও জানান তিনি। এই মুসক প্রত্যাহার হলে শিগগিরই ই-কমার্সে কেনাকাটা বাংলাদেশের মানুষের কাছে জনপ্রিয়তা পাবে বলে মনে করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মূল্য সংযোজন কর নীতির প্রথম সচিব শওকত হোসেন অর্থসূচককে জানান, বাংলাদেশের বিদ্যমান মুসক আইন অনুযায়ী সকল ধরণের বিক্রয় পণ্যের ওপর ১৫ শতাংশ মুসক দিতে হয়। তাই অনলাইন বাজার থেকেও এই মুসক আদায় করা হয়।

অনুষ্ঠানে জিবিজির ব্যবস্থাপক ন্যাশ ইসলাম বলেন, ‌ই-কমার্সকে এগিয়ে নিতে জিবিজি-ঢাকা ২০টিরও বেশি এ রকম অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। অনেক দেশিও বিদেশি প্রতিষ্ঠান এই সেমিনারে অংশ নেওয়াকে ই-কমার্সের ইতিবাচক সাফল্য হিসেবে দেখছেন তিনি।

এছাড়া পণ্য কেনা বেচার ক্ষেত্রে অর্থের বিনিময়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম নীতি জটিল বলে উল্লেখ করা হয়। যা পণ্য সরবরাহে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দাঁড়িয়েছে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এসইউএ/সাকি