রমজানে পণ্যমূল্য বাড়বে না: বাণিজ্যমন্ত্রী

0
78

খাদ্যরমজানে দেশে ভোগ্য পণ্যের কোনো সংকট হবে না। দেশে নিত্য প্রয়োজনীয় সকল পণ্যের পর্যাপ্ত মজুদ আছে। তাই রমজান মাসে মূল্য বৃদ্ধির কোনো আশংকা নেই বলে আবারও আশ্বাস দিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। সোমবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে গত ১২ মার্চ অনুষ্ঠিত আরেকটি বৈঠক শেষে একই কথা বলেছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী। এবার অবশ্য আরও একধাপ এগিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, শুধু রমজানে নয়, সারা বছরেও পণ্য মূল্য বাড়ার কোনো আশংকা নেই।

মন্ত্রী বলেন, শুধু রমজান মাসে নয় সারা বছরই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রীর মজুদ, সরবরাহ ও মূল্য স্বাভাবিক থাকবে। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রীর আমদানিকারক ও সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে সরকার সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী মজুত রয়েছে যা চাহিদার তুলনায় অনেক বেশি সরবরাহ রয়েছে। নিয়মিতভাবে আমদানি করা হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা চাহিদা মোতাবেক বাজারে পণ্যের সরবরাহ ও মূল্য স্বাভাবিক রাখতে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। সরকার ভোক্তাদের চাহিদা মোতাবেক নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল পণ্যের সরবরাহ ও মূল্য স্বাভাবিক রাখতে সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

তিনি আরও বলেন, প্রতি বছরের মতো এবারও রমজান মাসে সরকার টিসিবি’র মাধ্যমে ভোজ্যতেল, চিনি, ছোলা, মশুর ডাল  ও খেজুর এ পাঁচটি পণ্য সারাদেশে নির্ধারিত ডিলারের মাধ্যমে ন্যায়্যমূল্যে খোলা বাজারে বিক্রয় করবে। টিসিবি ইতোমধ্যে এজন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে।  ভোক্তাদের চাহিদা মোতাবেক টিসিবি সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রীর মজুদ, সরবরাহ এবং মূল্য যাতে অস্থিতিশীল না হয়, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে স্বচেতন থাকতে হবে। এবিষয়ে দেশের প্রচারমাধ্যমের ভূমিকাও খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভোক্তাদের স্বার্থে গণমাধ্যকে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতে হবে।

আমদানিকারক ও সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ পণ্য আমদানি এবং সাপলাই চেইনে যাতে কোনো ধরনের বাধা-বিপত্তির সৃষ্টি না হয় সে বিষয়ে সরকারের সহযোগিতা কামনা করলে মন্ত্রী ব্যবসায়ীদের চাহিদা মোতাবেক প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।

সভায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ, টেরিফ কমিশনের চেয়ারম্যান মো. ইকবাল খান চৌধুরী, এফবিসিসিআই এর চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ, টিসিবির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার সারোয়ার জাহান তালুকদার, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিপ্তরের মহাপরিচালক মো. আবুল হোসেন মিয়া, আমদানী-রপ্তানি নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর, বংলাদেশ ব্যাংক, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো, ডিজিএফআই, এনএসআই এর প্রতিনিধি এবং আমদানিকারক ও সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।