নিয়ম রক্ষার ম্যাচে মান বাঁচানোর লড়াই

0
67

BD_Teamটি-২০ বিশ্বকাপের নিয়ম রক্ষার ম্যাচে আজ বাংলাদেশ মুখোমুখি হবে পাকিস্তানের। ইতোমধ্যে সুপার টেনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ভারতের কাছে হারের পর বিশ্বকাপের এই আসর থেকে বিদায় নিয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। তাই হাতে থাকা অবশিষ্ট দুটি ম্যাচে হার জিত খুব গুরুত্বপূর্ণ নয় বৈতরণী পার হওয়ার জন্য। তবু আবারও দলের খেলোয়াড়রা শোনালেন আশার বাণী।

অন্যদিকে, প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানকে টুর্নামেন্টে টিকে থাকতে হলে আজকের ম্যাচে অবশ্যই জিততে হবে। তাই বাংলাদেশের কাছে এটা নিয়ম রক্ষার লড়াই হলেও পাকিস্তানের কাছে অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই। বাঘ-সিংহ লড়াই না হলেও বাংলাদেশ-পাকিস্তানের ক্রিকেটীয় লড়াইটা অনেকটাই স্নায়ুবিক টানাপড়েন প্রভাবিত। সেদিক থেকে বাংলাদেশের সবারই প্রত্যাশা অন্তত পাকিস্তানের সাথে জিততে হবে টাইগারদের।

বিশ্বকাপের এই আসরে স্বাগতিক হিসেবে অসংখ্য টাইগার সমর্থকের প্রত্যাশার পারদ ছিলো গগণচুম্বি।কিন্তু সেই প্রত্যাশার ছিটেফোটা মর্যাদাও রক্ষা করতে পারেনি বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়রা।

আইসিসির নাবালক শিশু নেদারল্যান্ডসকে যেখানে দেখা যায় দলকে ধ্বংসস্তুপ থেকে টেনে তোলার প্রাণান্তকর চেষ্টা সেখানে টেস্ট খেলুড়ে বাংলাদেশ দলের দায়িত্বহীন ব্যাটিং, বোলিং আর ফিল্ডিং একের পর এক লজ্জাজনক হার ছাড়া কিছুই দিতে পারে না দলকে।

তবে এতোসব হতাশার বাইরে গতকাল সাকিব সাংবাদিকদের বললেন বাংলাদেশের কেউই নাকি আশা করেনি সুপার টেন পর্ব উৎরে যাবে বাংলাদেশ। বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডারের এমন বক্তব্যের সত্যতা কিংবা যৌক্তিকতা মূল্যায়ন না করে এটুকু বলা যায় যে অন্তত টাইগাররা এতো বাজে খেলবে এমটা আশা করেননি কেউই।

নিঃসন্দেহে বলা যায় যে টাইগারদের ম্যাচে সবসময়ই ভক্তদের উত্তেজনার ভরকেন্দ্রে অবস্থান করেন সাকিব আল হাসান। দর্শকদের সেই প্রত্যাশা সাকিব-মুশফিকরা আজকের ম্যাচে হয়তো পূরণ করতে ব্যর্থ হবেনা।

পাকিস্তানের সাথে আন্তর্জাতিক টি-২০তে তেমন সুখ স্মৃতি নেই বাংলাদেশের। ৬ বার মোকাবেলা করে প্রতিবারই পরাজিত হয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে টাইগারদের। আর তাছাড়া টি-২০তে হাফিজ-আজমলদের দক্ষতা ও দখল কোনটিই কম না।

সকল হতাশা আর পরাজয়ের দু:খ ভুলে আজকে হয়তো ভালো খেলবে টাইগাররা, ছিনিয়ে আনবে জয়। আর অতীতের ভুল শুধরে গর্জে উঠবে তামিম- সাকিব- মুশফিক।