বর্তমান নির্বাচন পদ্ধতিতে জাল-জালিয়াতি হবেই: আকবর আলী

0
63
akbar ali khan

akbar ali khanবর্তমান নির্বাচন পদ্ধতিতে জাল জালিয়াতি হবেই বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক তত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. আকবর আলী খান।

তিনি  বলেন, যদি কোন দল সংসদে ৩০০টি আসনের মধ্যে অর্ধেকের বেশি একটি আসনে জয় লাভ করে তাহলে তারা নির্বাচিত। আর এই একটি আসনের জন্যই জাল-জালিয়াতি হয়।

শনিবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আর সি মজুমদার মিলনায়তনে “বাংলাদেশের সংবিধান পর্যালোচনা” শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

‘গণতান্ত্রিক আইন ও সংবিধান আন্দোলন’ নামক সংগঠন এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

আকবর আলী খান বলেন, এটা দেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে নির্বাচন পদ্ধতি। গত দশম জাতীয় নির্বাচন গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে ব্যর্থ হয়েছে। নির্বাচন ব্যর্থ হওয়ার পেছনে রয়েছে তত্বাবধায়ক সরকার। আর তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার সমাধান না হলে কখনো কোন সুষ্ঠ নির্বাচন সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, দেশের গণতান্ত্রিক ধারা বজায় রাখতে সংবিধানের পরিবর্তন করতে হবে। এর জন্য জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করতে হবে। একটি ভালো সংবিধানের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে সংবিধানের সংশোধন ব্যবস্থা থাকতে হবে।

সংবিধান সংশোধনের জন্য মূল বিষয়কে বাছাই করতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সংবিধান সংশোধনেদেশের জনগণ এবং সকল রাজনৈতিক দলের গ্রহণযোগ্যতা থাকতে হবে। যদি সংবিধানে কোন দলকে আক্রমণাত্বক ভাবে উপস্থাপন করা হয় তাহলে গ্রহণযোগ্য সংবিধান সংশোধন সম্ভব নয়।

তিনি আরো বলেন, সংবিধানে অনেক ভালো ভালো কথা লেখা থাকে। কিন্তু যদি ভালো ভালো কাজ না করি তাহলে এই ভালো কথার কোন দাম নেই। যারা সরকার তারা যদি সংবিধান অনুযায়ী ভালো কাজ না করে তাহলে সংবিধান থেকে কোন লাভ নেই। আমাদের দেশে রাজনৈতিক ব্যর্থতা সংবিধানের ঘাড়ে চাপিয়ে দিয়ে নতুন নতুন চমকপদ সংবিধান গঠন করা হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক ড. হারুন রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, দৈনিক প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খান, সুপ্রীস কোর্টের আইনজীবী ব্যরিস্টার সাদিয়া আরমান, আশা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অ্যাডভোকেট জামিলুর রহমান খান প্রমূখ।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন গণতান্ত্রিক আইন ও সংবিধান আন্দোলনের সমন্বয়কারী হাসনাত কাইয়ূম।

এএইচ/সাকি