ফরিদপুরে পুলিশের উপর হামলা, আতংকে এলাকায় পুরুষ শূন্য

0
55
foridpur
ফরিদপুর মানচিত্র

ফরিদপুর ম্যাপফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার দৈবকিনন্দনপুরে পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে দুই আসামিকে ছিনতাইয়ের ঘটনার পর থেকে গ্রেপ্তার আতংকে ওই এলাকা পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে।

প্রতিপক্ষের হামলার আশংকায় আতংকিত হয়ে পড়েছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার নারী সদস্যরাও।

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর উপজেলার দৈবকিনন্দনপুরে একটি মারামারি মামলার আসামি ধরতে যায় পুলিশ। কয়েক গজ দুরের তেলজুড়ী স্কুলের চলমান সাংস্কৃতিক অসুষ্ঠান দেখার সময় পুলিশ আসামি মো. আফতাব মোল্লা (৩০) ও মিরাজ নামের অপর এক যুবককে আটক করে গাড়ীতে তোলার চেষ্টা করে। এর কয়েক মিনিটের মধ্যে শতাধিক মানুষ পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে আটককৃতদের ছিনিয়ে নেয়। এ সময় মো. সাখাওয়াত হোসেন ও মো. হারুন-অর রশীদ নামে দুই পুলিশ কনস্টেবল গুরুত্বর আহত হয়। আহতদের বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। পরে রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে সন্দেহজনক ভাবে মাহি কাজী নামের একজনকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশের দাবি, গ্রেপ্তারকৃত আফতাব মোল্লা ডাকাতিসহ নানা অপকর্মের সাথে সম্পৃক্ত। এছাড়া তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আসামি না হওয়া সত্ত্বেও এক নীরিহ যুবককে আটক ও তাদের বেধড়র মারপিট করায় উত্তেজিত হয়ে পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে আটককৃতদের ছিনিয়ে নেয় তারা।

আফতাবের স্ত্রীর দাবি তার স্বামী ডাকাত নয়। নানা ধরনের রাখি মালের ব্যবসা বাণিজ্য করে সংসার চালান তিনি।

গ্রেপ্তার আতংকে পুরুষ সদস্যরা বাড়িতে না থাকায় বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশ সদস্যরা বিভিন্ন বাড়িতে গিয়ে নারী সদস্যদের সাথে দুব্যবহার করে বলে অভিযোগ স্থানীয় নারীদের।

এদিকে পুলিশের ছত্রছায়ায় মারামারি মামলার প্রতিপক্ষের লোকজন হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও দাবি করেন বাড়ির নারী সদস্যরা।

অপরদিকে পুলিশের পক্ষ থেকে ডাকাতিসহ একাধিক মামলার আসামি ধরতে গেলে আসামি পক্ষের লোকজন হামলা চালিয়ে আসামিদের ছিনিয়ে নেওয়া হয় জাননো হলেও ক্যামেরার সামনে কোন কথা বলতে রাজি হননি বোয়ালমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

পুলিশ জানিয়েছে, শনিবার দুপুর পর্যন্ত পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় মামলা হয়নি। তবে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এমআইটি/সাকি