‘হকারদের বছরে চাঁদা গুনতে হয় ৮৫০ কোটি টাকা’

0
68

হকার্সসারাদেশে ৫ লক্ষাধিক হকাররা দৈনিক গড়ে ৫০ টাকা হারে অবৈধ চাঁদা প্রদান করলে বছরে ৮৫০ কোটি টাকা অবৈধ চাঁদা প্রদান করে বিভিন্ন সংস্থাকে। এই চাঁদা সরকার বৈধভাবে রাজস্ব আদায়ের মাধ্যমে সরকারি কোষাগারে জমা করতে পারে। তার জন্য দরকার জাতীয় নীতিমালা। হকার্স সংগঠনগুলো দীর্ঘদিন যাবত হকার্স পুনর্বাসনের নীতিমালা প্রনয়নের দাবি করার পরেও সরকার আজও এই নীতিমালা প্রনয়নের মনোযোগী হয়নি। এতে করে সরকার প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আদায় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আর  হকাররা শিকার হচ্ছে নানা ধরনের হয়রানী, নির্যাতন ও  অবৈধ চাঁদাবাজির।

শনিবার সকালে পুরোনো পল্টন বাংলাদেশ ফটোর্জানালির্ষ্ট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হকার ও ফুটপাত ব্যবসায়ীদের ৩য় জাতীয় সম্মেলনে হকার্স নেতৃবৃন্দ এই অভিমত ব্যক্ত করেন।

জাতীয় হকার্স ফেডারেশনের সভাপতি আরিফ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক নেতা আবুল হোসাইন, বিশেষ অতিথি ছিলেন হকার্স নেতা এম.এ কাশেম, হারুন অর রশিদ, কামাল সিদ্দিকী, হিমাংশু মিত্র, ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা জাকির হোসেন রাজু, হকার্স নেতা জুয়েল, নজরুল ইসলাম, সাইজুদ্দিন, নির্মল চন্দ্র, মো. শাহীন, মো. ফারুক প্রমুখ।

হকার্স সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ বলেন, ভারত বর্ষের ন্যায় বাংলাদেশের হকারদের জাতীয় নীতিমালা ও আইন প্রনয়নের মধ্যে দিয়ে হকারদের  নিয়ন্ত্রণ ও পুনর্বাসন করা সম্ভব। এর জন্য দরকার সরকারের সদিচ্ছা।  এ ব্যাপারে তারা প্রধানমন্ত্রী ও শ্রমমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

সম্মেলনে আরিফ চৌধুরী সভাপতি এবং রফিকুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি নির্বাচিত করে। এই কমিটি আগামি ২ বছর দায়িত্ব পালন করবে।

সাকি/