লোকসানি কোম্পানির জয় জয়কার

0
87

5 comপুঁজিবাজারে হঠাৎ বেড়ে গেছে লোকসানি কোম্পানির কদর। লেনদেন আর মূল্য বৃদ্ধি-সবদিকেই এসব কোম্পানির জয়জয়কার। গত সপ্তাহে শেয়ারের মূল্য বৃদ্ধিতে শীর্ষ দশ কোম্পানির অর্ধেক অর্থাৎ ৫ টিই ছিল লোকসানি। পুঁঞ্জিভূত লোকসানে নুব্জ্য প্রায় এসব কোম্পানি।

কোম্পানিগুলো হচ্ছে,নর্দান জুট অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেড,রেইনউইক যজ্ঞেস্বর,শ্যামপুর সুগার মিলস,আনোয়ার গ্যালভানাইজিং এবং জিলবাংলা সুগার মিলস লিমিটেড।

বিশ্লেষণে দেখা যায়,সপ্তাহজুড়ে নর্দান জুটের শেয়ার দর বেড়েছে ৪৩ শতাংশ বা ৩০ টাকা।গত পাঁচ কার্যদিবসে শেয়ারটির দর ৬১ টাকা থেকে বেড়ে ৯১ টাকায় উঠে।

পাট খাতের এই কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন মাত্র ১ কোটি ৭০ লাখ টাকা। কোম্পানিটি ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকা পুঁঞ্জিভূত লোকসানে রয়েছে।কোম্পানির অর্ধবার্ষিকী (জুলাই-ডিসেম্বর)অনিরীক্ষিত প্রতিবেদন অনুসারে কোম্পানির কোম্পানির লোকসান বেড়েছে ৭৬ শতাংশ।

আলোচিত প্রান্তিকে কোম্পানিটি লোকসান দিয়েছে ১ কোটি ৯৯ লাখ ৯০ হাজার টাকা।শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস করেছে ১১ টাকা ৭৬ পয়সা।কোম্পানি আগের বছর একই সময়ে লোকসান দিয়েছিল ১ কোটি ১৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা। শেয়ার প্রতি লোকসান দেয় ৬ টাকা ৬৮ পয়সা।

উল্লেখ্, ‌‌‌জেড‌‌‌‌ ক্যাটাগরির কোম্পানিটি ১৯৯৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়।তবে কোম্পানিটি গত ১৪ বছরের মধ্যে শুধু ২০০৫ সালে ১০ শতাংশ ক্যাশ লভ্যাংশ দিয়েছে।

গত সাত কার্যদিবসে বিরতিহীনভাবে দর বেড়েছে রেনউইক যজ্ঞেস্বরের।এই কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়েছে ৩৪ শতাংশ বা ১৪০ টাকা।

কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন দুই কোটি টাকা। কোম্পানিটি ৮ কোটি ২৫ লাখ টাকা পূঞ্জিভূত লোকসান রয়েছে।

উল্লেখ্,লেদ মেশিন কেনার খবরে সপ্তাহ জুড়ে দর বাড়ার শীর্ষে ছিল এই কোম্পানিটি।

গত তিন কার্যদিবসে বিরতিহীনভাবে দর বেড়েছে শ্যামপুর সুগার মিলসের।এই শেয়ারটির দর বেড়েছে ১৯ শতাংশ বা ১ টাকা ৫০ পয়সা। কোম্পানিটির ২০১ কোটি পূঞ্জিভূত লোকসানে রয়েছে।গত ১৪ বছরে কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের কোন লভ্যাংশ দেয়নি।

পূঁঞ্জিভূত লোকসানে থাকা আনোয়ার গ্যালভানাইজিংয়ের সপ্তাহজুড়ে দর বেড়েছে ১৮ শতাংশ। কোম্পানিট দুই কোটি ৫১ লাখ টাকা পুঁঞ্জিভুত লোকসানে রয়েছে।

সপ্তাহজুড় জিলবাংলা সুগার মিলের শেয়ার দর বেড়েছে ১৬ শতাংশ। কোম্পানিটি ১৩৮ কোটি টাকা পূঁঞ্জিভুত লোকসানে রয়েছে।এই কোম্পানিটিও দীর্ঘদিন ধরে বিনিয়োগকারীদের কোন লভ্যাংশ দেয়নি।

বিশ্লেষকদের মতে,দূর্বল মৌলের এসব কোম্পানির শেয়ার সংখ্যা কম হওয়ায়,বাজারের দুর্দিনেও কারসাজি চক্র এ ধরনের শেয়ার নিয়ে কারসাজি করছে।এতে প্রায় প্রতিদিনই দর বাড়ার শীর্ষ তালিকায় থাকছে এই কোম্পানিগুলো।

এছাড়া গেইনারে থাকা অপর কোম্পানিগুলো হচ্ছে,আলহাজ্ব টেক্সটাইল,দেশ গার্মেন্টস,ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টস,মুন্নু সিরামিক এবং অ্যাটলাস বাংলাদেশ লিমিটেড।

এদের মধ্যে আলহাজ্ব টেক্সটাইল এবং দেশ গার্মেন্টসের অবস্থাও ভালো নয়। শেয়ারের আয়ের তুলনায় অনেক বেশি দামে কেনা-বেচায় হয়েছে এদের শেয়ার। কোম্পানি দুটির মধ্যে দেশ গার্মেন্টসের বর্তমান মূল্য-আয় অনুপাত বা পিই রেশিও ১৫১ এবং আলহাজ্ব টেক্সটাইলের পিই রেশিও ৭৯।