আ. লীগকে আর বিশ্বাস করা যায় না: খালেদা

0
61
khaleda zia

khaleda ziaউপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ যে সহিংস রাজনীতির চর্চা করেছে এর পর তাদেরকে আর বিশ্বাস করা যায় না। তারা নিরপেক্ষ নির্বাচনের কথা বললেও তাদের মুখে এসব কথা আর মানায় না।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) আয়োজিত ‘দ্বি-বার্ষিক সাধারণ সভায়’ প্রধান অতিথির ব্ক্তব্যে  বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এ কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, উপজেলা নির্বাচনের প্রথম দু’টি ধাপে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা এগিয়ে ছিল। কিন্তু পরবর্তী ধাপের নির্বাচনগুলোতে ফলাফল নিজেদের দখলে রাখতে ব্যাপক দলবাজি ও সহিংসতা করা হয়েছে ।

বেগম জিয়া বলেন, স্বাধীনতা অর্থহীন হয়ে গেছে। দেশ পরিচালিত হচ্ছে অন্য কোথা থেকে।তাই এ সরকারকে হঠাতে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।  জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

রণাঙ্গনের মৃক্তিযোদ্ধা ও সীমান্ত পাড়ি দেওয়া মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে তফাৎ আছে এমন মন্তব্য করে বেগম জিয়া বলেন,   আ.লীগ মুখে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বলে ঠিকই কিন্তু তারা যুদ্ধ দেখেওনি, করেওনি।

নিজের দলের রাজাকারের হিসেব না নিয়ে চারদিকে শুধু রাজাকার দেখছেন ক্ষমতাসীনদের প্রতি এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধের শেষ সময় পর্যন্ত পাকিস্তানীদের হয়ে কাজ করেছেন। তাদের আরেক ভদ্রলোক যিনি এখন নাকি উপদেষ্টা। যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে তিনি পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশে এসে ছুটি কাটিয়ে আবার পাকিস্তান ফিরে গিয়েছিলেন। তারা চারদিকে রাজাকার দেখেন কিন্তু নিজের দলের মধ্যে দেখেনা।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের কথা বলে তারা মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চায় আওয়ামী লীগ। তাই মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস লেখার আহবান জানান তিনি।,

বেগম জিয়া বলেন, দেশের মানুষ চাকরি পায়না। ভিসার মেয়াদোর্ত্তীর্ণ বিদেশিদের দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে। দেশের মানুষকে বেকার বানিয়ে বিদেশিদের পূণর্বাসন চলছে। এছাড়া কর্মস্থলে কেউ নিরাপদ নেই বলেও দাবি করেন তিনি।

এসময় বিএফইউজে একাংশের মহাসচিব শওকত মাহমুদ, ডিইজে-র একাংশের সভাপতি কবি আব্দুল হাই শিকদার, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাদের গণি চৌধুরী, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, সাংবাদিক নেতা এম আব্দুল্লাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ৩০ মার্চ জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএফইউজের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনে দু’টি প্যানেলে প্রতিদ্বন্দিতা করবে। প্যানেল দু’টির একটিতে সভাপতি পদে লড়বেন বিএফইউজের বর্তমান  মহাসচিব শওকত মাহমুদ ও মহাসচিব পদে এম এ আজিজ। অপর প্যানেলে গোলাম মহিউদ্দিন খান সভাপতি ও মহাসচিব পদে ডিইজের সাবেক সভাপতি এলাহি নেওয়াজ খান সাজু প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেনন।

এমআর