রাবিতে শিবির সন্দেহে শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগের মারধর

0
63
Rajshahi university

Rajshahi universityরাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল হান্নান নামের এক শিক্ষার্থীকে শিবির সন্দেহে ব্যাপক মারধর করেছে ছাত্রলীগ।

শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে ২টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের মাদার বখশ হলের ২৪০ নম্বর কক্ষে নিয়ে উচ্চ শব্দে গান বাঁজিয়ে তাকে মারধর করা হয়। এতে ওই শিক্ষার্থীর দুই পা ভেঙ্গে গেছে বলে জানা গেছে।

পরে মতিহার থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে গেলে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে পুলিশ।

হল সূত্রে জানা গেছে, মাদার বখশ হলের ২৫৩ নম্বর কক্ষে থাকতেন হান্নান। শুক্রবার সকালে তাকে ২৪০ নম্বর কক্ষে ডেকে নেয় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদস্য ও লোকপ্রশাসন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহিল বাকি।

ওই কক্ষে নিয়ে তাকে শিবির করে বলে উল্লেখ করে কোনো কারণ ছাড়াই রড ও লাঠি দিয়ে দেড় থেকে দুই ঘন্টা ধরে মারতে থাকে বাকির নেতৃত্বে রাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ আল তুহিন গ্রুপের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী।

ছাত্রলীগের এমন বেদম প্রহারে ওই শিক্ষার্থীর দুই পা ভেঙ্গে যায়। এসময় ওই শিক্ষার্থীর চিৎকার যাতে বাহিরে কেউ শুনতে না পারে সে জন্য কম্পিউটারে উচ্চ শব্দে গান বাঁজানো হয়। পরে মতিহার থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ-সম্পাদক তৌহিদ আল হোসেন তুহিন বলেন, হলে আমার ছেলেরা এক শিক্ষার্থীকে শিবির সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তবে, মারধরের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহামান রানা বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না। যদি কোনো শিক্ষার্থীকে মারধর করা হয় তাহলে এটা খুবই দুঃখজনক।

মতিহান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এবিএম রেজাউল ইসলাম বলেন, হলে এক শিক্ষার্থীকে মারধরের কথা জানতে পেরে পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করেছে।