বিএমএসএলের হাতে তিন আইপিও

0
132
bmsl ipo alliance holding khan brothers

bmsl ipo alliance holding khan brothersপ্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজারে আসার অপেক্ষায় আছে তিনটি কোম্পানি। বাজারে শেয়ার ছেড়ে মূলধন সংগ্রহে আগ্রহী এরা। কোম্পানিগুলো হলো- অ্যালায়েন্স হোল্ডিং লিমিটেড,ইয়াকিন পলিমার লিমিটেড ও খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। কোম্পানিগুলোকে বাজারে নিয়ে আসার জন্য কাজ করছে বিএমএসএল ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে,কোম্পানি তিনটি বাজার থেকে প্রায় ২২৬ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। তবে সব কিছুই নির্ভর করবে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমোদনের উপর।বর্তমানে বিএসইসি কোম্পানিগুলোর খসড়া প্রসপেক্টাস ও সংশ্লিষ্ট দলিলপত্র যাচাই-বাছাই করে দেখছে।

জানা গেছে,তিনিটি কোম্পানির মধ্যে খান ব্রাদার্সের ইস্যুয়ারের দায়িত্বে রয়েছে এ এফ সি ক্যাপিটাল লিমিটেড।বিএমএসএল ইনভেস্টমেন্ট সহযোগি ইস্যুয়ার হিসাবে কাজ করছে। বাকী দুইটি কোম্পানির ইস্যুয়ার হিসাবে কাজ করছে বিএমএসএল ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

জানা গেছে,ইয়াকিন পলিমার পলি ব্যাগ তৈরি করে। কোম্পানিটি অভিহিত মূল্যে শেয়ার বিক্রি করতে আগ্রহী। বিএসইসির অনুমোদন পেলে এ কোম্পানি এক কোটি ৪০ লাখ শেয়ার ইস্যু করবে। এর মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ১৪ কোটি টাকা।

অ্যালায়েন্স হোল্ডিং আইপিও’র মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ১৯২ কোটি ৫০ লাখ টাকা। তিন কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ইস্যু করে তারা এ টাকা সংগ্রহ করবে। এ জন্য কোম্পানিটি ৪৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ ৫৫ টাকা দরে শেয়ার বিক্রির অনুমোদন চেয়ে আবেদন করেছে। বিএসইসি অনুমোদন দিলে কোম্পানিটি বাজারে শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে টাকা সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু করবে।

এদিকে,খান ব্রাদার্স পিপি ওভেন ব্যাগ লিমিটেড পুঁজিবাজারে দশ টাকা দরে শেয়ার বিক্রির জন্য আবেদন করেছে। এ কোম্পানিটি দুই কোটি শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে ২০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে।

তিনটি কোম্পানির আইপিও ছাড়াও বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফিন্যান্স কোম্পানি লিমিটেডের (বিআইএফসি) রাইট নিয়ে কাজ করছে মার্চেন্ট ব্যাংকটি। আর্থিক প্রতিষ্ঠানটি দুইটি শেয়ারের বিপরীতে একটি করে রাইট প্রস্তাব করেছে।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে বিএমএসএল ইনভেস্টমেন্টের প্রধান নির্বাহী রিয়াদ মতিন অর্থসূচককে বলেন,আমরা বিএসইসিতে কোম্পানিগুলোর প্রসপেক্টাস জমা দিয়েছি। কমিশনের অনুমোদন পেলে কোম্পানিগুলো বাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করতে পারবে।

জিইউ