চট্টগ্রাম কাস্টমসে ৪৫০ কোটি টাকা রাজস্ব বকেয়া ৯ সরকারি প্রতিষ্ঠানের

প্রতিনিধি

0
56

সরকারি ৯ প্রতিষ্ঠানের কাছে ডেফার্ড পেমেন্টের প্রায় ৪৫০ কোটি টাকার রাজস্ব আটকে চট্টগ্রাম কাস্টম কর্তৃপক্ষের। এসব প্রতিষ্ঠান ২০১২ সাল থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে পণ্য খালাস করলেও বকেয়া রাজস্ব পরিশোধ করেনি।

কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) অনুমতি সাপেক্ষে আমদানি পণ্যের বিপরীতে নির্ধারিত শুল্ক বকেয়া রেখে পণ্য খালাস করার সুযোগ পায় সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো।

পরবর্তীতে নির্ধারিত তারিখে এসব শুল্ক পরিশোধের কথা থাকলেও এসব প্রতিষ্ঠান তা বাস্তবায়ন করেনি। কাস্টমস কর্তৃপক্ষ একাধিকবার এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দাবিনামা জারি করেও ডেফার্ড পেমেন্টের অর্থ আদায় করতে পারছে না। সর্বশেষ গত ২০ ডিসেম্বর এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে এনবিআরে চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি।

এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাওনা রয়েছে, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) এবং বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের কাছে। বিসিসি’র কাছে ১৫ টি চালানের বিপরীতে ১৪৯ কোটি ৩১ লাখ ২৩ হাজার ৯৮৪ টাকা এবং বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিসের ৩টি চালানে ১৪৫ কোটি ৮৪ লাখ ২৭ হাজার ৭৬৩ টাকার রাজস্ব আটকে আছে চট্টগ্রাম কাস্টমসের।

এছাড়া, ঢাকা ওয়াসার কাছে ৬টি চালানের বিপরীতে ৯৭ কোটি ১৯ লাখ ৬১ হাজার ৯৪ টাকা,  বাংলাদেশ সার্ভিলেন্স লিমিটেড এর কাছে ৪৭ টি চালানে ২৬ কোটি ৬৫ লাখ ২৪ হাজার ৯৩৫ টাকা, বাংলাদেশ চীন ফ্রেন্ডশিপ এম্ভিউশন সেন্টার প্রোজেক্ট এর দুটি চালানে ৬ কোটি ২৮ লাখ ৯৭ হাজার ৬৬৯ টাকা, ন্যাশনাল কারিকুলাম অ্যান্ড টেক্সবুক বোর্ড এর কাছে ৯টি চালানে ৩ কোটি ৭০ লাখ ২১ হাজার ৭১৮ টাকা বকেয়া রাজস্ব আদায় করতে পারেনি কাস্টমস।

এছাড়া একটি করে চালানের বিপরীতে লোকাল গভর্নমেন্ট অ্যান্ড মিনিস্ট্রি অব এলসিআরডি অ্যান্ড কো-অপ বাংলাদেশ সেক্রেটারিটি’র কাছে ১১ কোটি ৬৩ লাখ ৩২ হাজার ৮৬০, বাংলাদেশ চায়না পাওয়ার কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড ৮ কোটি ৯১ লাখ ৪০ হাজার ৫০ টাকা এবং টেলিফোন শিল্প সংস্থা লিমিটেড এর কাছে ৪১ লাখ ২ হাজার ৯৪৮ টাকার ডেফার্ড পেমেন্টের টাকাও একাধিকবার দাবিনামা জারি করেও অর্থ আদায় করতে পারেনি কাস্টমস।

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম কাস্টমসের ডেপুটি কমিশনার আবদুর রশিদ বলেন, নির্ধারিত সময়ের পরও ডেফার্ড পেমেন্টের বকেয়া টাকা পরিশোধ করতে না পারায় এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে একাধিকবার দাবীনামা জারি করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত তাদের কাছ থেকে আশানুরূপ সাড়া না পেয়ে এনবিআরে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ৫ নভেম্বর এনবিআরে পাঠানো অপর এক চিঠিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স’র পক্ষ হতে দাবিনামার বিপরীতে কোন সাড়া না পাওয়ায় ২০২ ধারা জারি করা হয়। ২০২ ধারায় জবাব না পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির বিআইএন লক করার বিষয়ে এনবিআরের মতামত চাওয়া হয়েছে চিঠিতে।

এ প্রসঙ্গে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কাস্টম পলিসি) লুৎফর রহমান বলেন, এসব প্রতিষ্ঠান বিষয়ে কি ধরণের ব্যবস্থা নেওয়া যায় তার সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।

অর্থসূচক/টিপি/জেডআর