বিজয়ের বিদায়

অর্থসূচক ডেস্ক

0
51

শুরুটা দারুন করেছিলেন আনামুল হক বিজয়। তামিমের সঙ্গে ওপেন করতে নেমে মাত্র ১৪ বলে ৪টি চারের সাহায্যে করেন ১৯ রান। কিন্তু দলের রান যখন ৩০ তখই সিকান্দার রাজার বলে ক্যাচ দিয়ে সাজ ঘরে ফেরেন তিনি।

আনামূলের বিদায়ের পরে ৯ রানে অপরাজিত থাকা তামিমের সঙ্গে ক্রিজে যোগ দিয়েছেন সাকিব আল হাসান। প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেট হারিয়ে ৩২ রান।

এর আগে দিনের শুরুতে ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

ফাইল ছবি

জিম্বাবুয়ে জয়ের জন্য বাংলাদেশের সামনে ১৭১ রানের লক্ষ্য দেয়।

জিম্বাবুয়ের ইনিংসটা যে দীর্ঘ হবে না তার আভাস মিলেছিল খেলার শুরুতেই। ইনিংসের প্রথম ওভারেই সাকিবের জোড়া আঘাতে থমকে যায় সফরকারীরা। এরপর সাকিব, মোস্তাফিজ আর রুবেলদের আঘাতে মাত্র ১৭০ রানেই থেমে যায় জিম্বাবুয়ের ইনিংস।

খেলার শুরুতে সাকিব আল হাসানের লেগ স্টাম্পের বাইরের বলে গ্ল্যান্স করতে গিয়েছিলেন মিরে।কিন্তু বলে ব্যাট ছোঁয়াতে পারেননি। পা চলে আসে ক্রিজের বাইরে। বল ধরে চোখের পলকে বেলস ফেলে দেন মুশফিক। দলের রান তখন মাত্র দুই।

প্রথম উইকেটের রেশ না কাটতেই ক্রেইগ আরভিনকে ফেরান সাকিব আল হাসান। তখনও জিম্বাবুয়ের রান ওই দুই।

এর পরে দলের রান যখন ৩০ তখন অধিনায়ক মাশরাফির বলে কট বিহাইন্ড হয়ে ফিরে যান জিম্বাবুয়ের ওপেনার হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। তিনি করেন ২৪ বলে ১৫ রান।

জিম্বাবুয়ের রান যখন ৫১ তখন  ২৪ রান করা টেইলরকে ফেরান মুস্তাফিজ। এরপর দলের রান যখন ৮১ তখন আগে দুইবার জীবন পাওয়া ওয়ালারকে ফেরার সানজামুল। ৩০ বলে ১৩ রান করের ওয়ালার।

এরপরে সাকিব আল হাসানের দারুণ ফিল্ডিংয়ে হলেন রান আউট জিম্বাবুয়ের সর্বোচ্চ স্কোরার সিকান্দার রাজা। ৯৯ বলে দুটি বলে ছক্কা-চারে ৫২ রান করেন রাজা। তার বিদায়ের সময় জিম্বাবুয়ের স্কোর ১৩১ রানে ৬ উইকেট।

এর পরে দলের ১৬১ রানের মাথায় সাকিবের তৃতীয় শিকার  হয়ে সাজ ঘরে পেরেন ক্রিমার। গ্রায়েম ক্রিমার করেন  ২০ বলে ১২ রান। এরপর তিনটি উইকেট পড়ে মাত্র ৯ রানের মধ্যে।

এরপর পরপর দুই বলে দুই বোল্ডে ওয়ানডেতে নিজের শততম উইকেট পেয়ে গেলেন রুবেল হোসেন। আক্রমণে ফিরেই আঘাত হানেন রুবেল হোসেন। ফিরিয়ে দেন জিম্বাবুয়ের শেষ বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান পিটার মুরকে। দুই চারে ৫৮ বলে ৩৩ রান করেন মুর।

তখন জিম্বাবুয়ের স্কোর ৮ উইকেটে ১৬৭ রান।

রুবেলের এর পরেই বলেই তেন্দাই চাতারা ফেরেন শূন্য রানে। ৪৭.৪ ওভারে জিম্বাবুয়ের স্কোর ১৬৭ রানে ৯ উইকেট।

এরপর নিজের কোটার শেষ বলে মুস্তাফিজুর রহমান উড়িয়ে দেন অভিষিক্ত ব্লেজিং মুজারাবানির স্টাম্প। এক ওভার বাকি থাকতে ১৭০ রানে গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ব্যাটিং- মাসাকাদজা ১৫, মিরে ০, আরভিন ০, টেইলর ২৪, রাজা ৫২, ওয়ালার ১৩, মুর ৩৩, ক্রিমার ১২, জার্ভিস ৪*, চাতারা ০, মুজারাবানি ১;

বোলিং- সাকিব ৩/৪৩, সানজামুল ১/২৯, মাশরাফি ১/২৫, মুস্তাফিজ ২/২৯, রুবেল ২/২৪, নাসির ০/১৫।

টি