সিপিডি দেশের উন্নয়ন খুঁজে পায় না: বাণিজ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
68
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। ফাইল ছবি

সিপিডি দেশবাসীকে হতবাক করেছে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি জানান, সিপিডির  প্রকাশিত গবেষণা রিপোর্ট সঠিক হলে তা হবে দুঃজনক। সিপিডি দেশের উন্নয়ন খুঁজে  পায়না।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নের সকল শর্ত পূরণ করে বাংলাদেশ যখন এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হতে যাচ্ছে আগামী মার্চ মাসে, তখন সিপিডি দেশের উন্নয়নের সমালোচনা করছে। অথচ বিশ্ব ব্যাংকসহ দেশি-বিদেশী বিখ্যাত অর্থনীতিবিদ, অর্থনৈতিক গবেষক ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রশংসা করছে।

tofayel-ahmed
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। ফাইল ছবি

তিনি আরও বলেন, ২০০৬ সালে  দেশের দারিদ্র্য  মানুষ  ছিল  ৪৩ ভাগ, আজ তা কমে ২২.৪  ভাগে নেমে এসেছে,  দেশের হতদরিদ্র  মানুষের সংখ্যা ১৭.৬ ভাগ থেকে ১১.৯ ভাগে নেমে এসেছে।

জাতিসংঘ ঘোষিত এসডিজি’র সফল বাস্তবায়নের মধ্যদিয়ে ২০৩০ সালে দেশের  হতদরিদ্র মানুষের  সংখ্যা ৩ ভাগের  নীচে নেমে আসবে। সরকার দেশের দারিদ্র্যতা দূর করতে দীর্ঘমেয়াদী নিরাপত্তা ব্যবস্থা চালু করেছে। ২০৩০ সালে বাংলাদেশ  হবে  বিশ্বের মধ্যে ২৮তম এবং ২০৫০ সালে ২৩তম অর্থনৈতিক ভাবে শক্তিশালী দেশ। এমডিজি অর্জনে  বাংলাদেশ এলডিসি দেশগুলোর  মধ্যে  সফল  হয়েছে।

আজ রবিবার সচিবালয়ে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় বাণিজ্যসচিব  শুভাশীষ বসু,  অতিরিক্ত সচিব মুন্সী শফিউল হক, অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) তপন কান্তি ঘোষ উপস্থিত ছিলেন।

তোফায়েল  আহমেদ বলেন, ২০০৫-২০০৬ সালে দেশের রপ্তানি ছিল ১০.৫৩ বিলিয়ন মার্কিন  ডলার, গত অর্থ বছরে বাংলাদেশ রপ্তানি করেছে ৩৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য।

বর্তমানে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রয়েছে ৩২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি,  রেমিটেন্স আসছে প্রায় ৩৫  বিলিয়ন মার্কিন ডলার। সিপিডি সেখানে  বাংলাদেশের উন্নয়ন খুঁজে পাচ্ছে না।

তিনি বলেন, এ রিপোর্ট প্রকাশের মাধ্যমে সিপিডি বিরোধী দলের হাতে অস্ত্র তুলে দিলো। যারা এক সময় বাংলাদেশকে বলতো তলাবিহীন ঝুড়ি  এবং বিশ্বের দরিদ্র দেশের রোল মডেল।

আজ তারাই বলছে বাংলাদেশের উন্নয়ন বিস্ময়কর, সেখানে সিপিডি বাংলাদেশের উন্নয়ন খুঁজে  পায় না।

অর্থসূচক/আজম/জেডআর