হাকিমপুরে জাতীয় সংগীত গাওয়ার সময় ওসির অপসারণ দাবিতে মিছিল

0
59
Dinajpur Hili Pic

Dinajpur Hili Picসারা দেশের ন্যায় এক সঙ্গে যখন দিনাজপুরের হাকিমপুর ডিগ্রী কলেজ মাঠে, গ্রীনিজ বুকে বাংলাদেশের স্থান করে নেওয়ার জন্য উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, শিক্ষক এবং এলাকার সুধী ব্যক্তিরা বুকে হাত রেখে জাতীয় সংগীত“আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি” লাখো কন্ঠে সুর মিলে এক সঙ্গে গেয়ে ওঠে ঠিক সেই সময় মাঠের পাশ দিয়েই এক দল গ্রামবাসি হাতে লাঠি সোটা নিয়ে মিছিল নিয়ে যাচ্ছিল হাকিমপুর থানার ওসির অপসারনের দাবিতে।

এ সময় লাখো কন্ঠে গাওয়া জাতীয় সংগীতের  মঞ্চে উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আজিজুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আজহারুল ইসলাম এমনকি হাকিমপুর থানার ওসি এএসএম আহসান হাবিব নিজেও উপস্থিত থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের  ছাত্র-ছাত্রীদের সালাম ও অভিবাদন গ্রহ করছিলেন।

সে সময় অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ কারীদের দৃষ্টি চলে যায সে দিকে। এতে কিছুটা হলেও অনুষ্ঠানের ব্যত্যয় পরিলক্ষীত হয়।

মিছিলকারিরা হিলি স্থলবন্দরের চারমাথা মোড় প্রায় ১ ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আজহারুল ইসলাম ও স্থানীয় নেতাদের অনুরোধে অবরোধ তুলে নেয়। তারা বিষয়টি উপর মহলে জানানো হবে বলেও মিছিলকারিদের আশ্বাস দেয়।

মিছিলকারীরা জানায়, গ্রামবাসী হাকিমপুর উপজেলার বৈইগ্রামের আব্দুর রহিমের পুত্র ডাকাত লালু কে ডাতাতির সময় ধরে থানা পুলিশে দিলেও তাকে অন্য  ডাকাতি মামলায়  আটক দেখায়। উপরোন্ত অভিযোগকারীকেই ফাঁসানোর চেষ্টা করে। তারা আরো জানান, আমরা বাজার-ঘাঁট করে একটু রাত হলেই বাড়ি ফিরতে পথে ছিনতাই কারি প্রায় আমাদের সাইকেল মটরসাইকেল টাকা-পয়সা সব কেড়ে নেয় এর প্রতিকার চেয়ে বারবার বলেও কোন লাভ হয়নি।

গত ২৫ মার্চ গভীর রাতে উপজেলার রাউতারা গ্রামের কালামের বাড়ির লোক জনকে বেধে রেখে কয়েক লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে যাওয়ার পথে বৈগ্রামে রাতে পাহারা দেওয়া লোক জন লালু নামের ওই ডাকাতকে আটক করে। পরে কিছু উত্তম-মাধ্যম দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। এ ব্যাপারে গৃহকর্তা কালাম বাদী হয়ে থানায় মামলার জন্য এজাহার জমা দিলে পুলিশ সে মামলাটি গ্রহণ না করে ডাকাত লালুকে অন্য মামলায় গ্রেপ্তার দেখায়। এতে এলাকাবাসী ক্ষোভে ফেটে পড়ে।

আরকে/সাকি