এবি ব্যাংকের চেয়ারম্যানকে দুদকের তলব

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
44

অর্থ পাচারের অভিযোগ তদন্তে এবার বর্তমান চেয়ারম্যানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বেসরকারি ব্যাংকটির নতুন চেয়ারম্যান এম এ আউয়ালকে আজ সোমবার দুদক কার্যালয়ে উপস্থিত হতে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

এর আগে অর্থ পাচারের অভিযোগ তদন্তের জন্য এবি ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যানসহ কয়েকজন কর্মকর্তাকে তলব করেছিল দুদক।

দুদকের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য একথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আজ সোমবার ব্যাংকটির পরিচালক বি বি সাহা রায়কেও উপস্থিত হতে নোটিস দেওয়া হয়েছে।

এবি ব্যাংকের নতুন চেয়ারম্যান এম এ আউয়াল। ছবি সংগৃহিত।

গতকাল রোববার ব্যাংকটির ৬ পরিচালককে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুদক। তারা হলেন- শিশির রঞ্জন বোস, মো. মেজবাহুল হক, মো. ফাহিমুল হক, সৈয়দ আফজাল হাসান উদ্দিন, মোছা. রুনা জাকিয়া ও অধ্যাপক এম ইমতিয়াজ হোসাইন।

দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন ও সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

গত ২৮ ডিসেম্বর ব্যাংকটির সাবেক চেয়ারম্যান এম ওয়াহিদুল হক এবং সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম ফজলার রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক।

এরপর গত ৩১ ডিসেম্বর ব্যাংকটির সাবেক এমডি শামীম আহমেদ চৌধুরী ও ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইন্সটিটিউশন অ্যান্ড ট্রেজারি শাখার প্রধান আবু হেনা মোস্তফা কামালকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

গত ২ জানুয়ারি ব্যাংকটির আরও পাঁচ কর্মকর্তাকে দুদক জিজ্ঞাসাবাদ করে। তারা হলেন- ব্যাংকের হেড অব করপোরেট মাহফুজ উল ইসলাম, হেড অব অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট (ওবিইউ) মোহাম্মদ লোকমান, ওবিইউর কর্মকর্তা মো. আরিফ নেয়াজ, কোম্পানি সচিব মাহদেব সরকার সুমন ও প্রধান কার্যালয়ের কর্মকর্তা এমএন আজিম।

দুর্নীতি দমন কমিশনের লোগো। ছবি সংগৃহীত

এদিকে ব্যাংকটি সাবেক চেয়ারম্যান এম ওয়াহিদুল হকসহ ব্যাংকটির সাবেক ও বর্তমান ১৬ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দুদক।

দুদক জানায়, সিঙ্গাপুরভিত্তিক একটি অফশোর কোম্পানি খোলার নাম করে দুবাইয়ের পিজিএফ নামের একটি প্রতিষ্ঠানে ১৬৫ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

অর্থসূচক/এসবিটি