চামড়া শিল্পের সিইটিপি; কাজ শেষ হবে এক বছরের মধ্যেই

0
70

latherসেই ২০১২ সাল থেকে একাধিকবার উদ্যোগ নেওয়া হলেও নানান কারণে চামড়া শিল্পের জন্য কেন্দ্রীয় বর্জ্য পরিশোধনাগার (সিইটিপি) হয়ে ওঠেনি। শিল্পটির স্থানান্তরের অযুহাতেই এটি করা হয়নি। তবে শেষতক সিইটিপি নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়ার এক্সপোর্টারস অ্যাসোসিয়েশনের (বিএফএলএলএফই) পক্ষ থেকে আশা প্রকাশ করে বলা হয়েছে আগামি ২০১৫ সালের এপ্রিল নাগাদ এর কাজ শেষ হবে।

সংস্থাটির চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার আবু তাহের জানান, গত মাসের ২৪ ফেব্রুয়ারি শিল্পমন্ত্রীর আলটিমেটামের পর শুরু হয়েছে। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামি বছর এপ্রিলের মধ্যে কাজ শেষ হবে।

প্রসঙ্গত ২০১২ সালের জুলাই মাসে (সিইটিপি)’র কাজের মেয়াদ প্রথম পর্যায়ে শেষ হয়েছিলো। তবে কাজ শেষ না হওয়ায় আবার নতুন করে দ্বিতীয় পর্যায়ে চলতি বছরের ৬ জানুয়ারি পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হলেও কাজ শেষ হয়নি। কাজ বন্ধ হয়ে যায় আবারও। এই অবস্থায় নতুন করে কাজ শুরু করার জন্য শিল্পমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আল্টিমেটাম দেওয়া হয়।

আবু তাহের জানান, শিল্পমন্ত্রীর নির্দেশের পর ইতোমধ্যে নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। আর এই জন্য অন্যান্য প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, আগে যেমন কাজের তদারকি,বিসিকে ডিজাইন জমা দেওয়া, নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জেএলইপিসিএল-ডিসিএল-জেভি অন্যান্য বিষয়াদিসহ কিছু সমস্যা ছিল। তবে তার মতে এবার এই সমস্যা কেটে গেছে।

তাহের জানান, নির্মাণ কাজ তদারকি করার জন্য ইতোমধ্যে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়কে (বুয়েট) দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া ট্যানারি মালিকরা এরই মধ্যে ১১৫ ডিজাইন জমা দিয়েছেন।

গত মাসের ২৪ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়ার এক্সপোর্টারস অ্যাসোসিয়েশনের (বিএফএলএলএফইএ) নেতারা ‘ঢাকা চামড়া শিল্পনগরী, সাভার প্রকল্পের আওতায় ঢাকার হাজারীবাগে অবস্থিত ট্যানারিগুলো সাভারে স্থানান্তরসহ প্রকল্পের সার্বিক বাস্তবায়ন অগ্রগতি সম্পর্কিত’ একটি সভা করেন। সেখানে শিল্পমন্ত্রী ৭ দিনের মধ্যে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে বর্জ্য পরিশোধনাগার (সিইটিপি)’র কাজ শুরু করতে আলটিমেটাম দিয়েছিলেন।

মন্ত্রীর নির্দেশের পর তড়িঘড়ি করে কাজ শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ। তবে এবারও নির্ধারিত সময়ে কাজ সমাপ্ত হবে কি না তা নিয়ে রয়েছে সংশয়।

জানা যায়, হাজারীবাগ হতে চামড়াশিল্পকে স্থানান্তর করার উদ্দেশ্যে ২০১৩ সালের ১০ অক্টোবর একটি ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। শর্তানুযায়ী চামড়া নগরীতে সিইটিপি নির্মাণ, ক্ষতিপূরণ প্রদান ও কারখানা স্থানান্তর কার্যক্রম সমানভাবে চলার কথা ছিলো।

তবে এই নির্মাণ কাজ মন্থর গতিতে চলতে থাকে। প্রকল্প এলাকার অবকাঠামোগত নির্মাণ কাজ প্রায় সমাপ্ত হলেও সিইপিটির কাজ প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে বলে জানা যায়।

তবে কারখানা স্থানান্তরের ব্যাপারে ট্যানারি শিল্প মালিকদের আগ্রহ থাকলেও সিইটিপি ছাড়া তা বাস্তবায়ন হচ্ছে না। তাই সিইটিপি নির্মাণ ত্বারান্বিত করা ও কারখানা স্থানান্তর না হওয়া পর্যন্ত বিভিন্ন দপ্তরের হয়রানি বন্ধের আহ্বান জানানো হয় সংশ্লিষ্ঠদের পক্ষ থেকে।