রেমিটেন্সের উৎস সৌদি আরব

0
169
Taka

Takaবর্তমানে দেশের অর্থনীতির প্রধান চালিকাশক্তি হলো রেমিটেন্স (প্রবাসি আয়)। আর এ রেমিটেন্সের প্রধান উৎস হলো সৌদি আরব। চলতি অর্থবছরের প্রথম আট মাসেই দেশটি থেকে প্রবাসিরা রেমিটেন্স পাঠিয়েছে ২০৩ কোটি ৯০ লাখ মার্কিন ডলার। এ হার গত আট মাসে আসা মোট রেমিটেন্সের ২২ শতাংশেরও বেশি।

জানা গেছে, সৌদি আরবে প্রায় ৪০ লাখ বাংলাদেশি কর্মরত আছে। আর এ কারণে দেশটি থেকে রেমিটেন্স আসার হারও বেশি। চলতি অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি মাসে দেশটি থেকে রেমিটেন্স এসেছে ২৬ কোটি ৮৭ লাখ মার্কিন ডলার। যা ওই মাসে আসা মোট রেমিটেন্সের প্রায় ২৩ শতাংশ।

চলতি অর্থবছরের আট মাসের মধ্যে জানুয়ারি মাসে দেশটি থেকে সবচেয়ে বেশি রেমিটেন্স এসেছে। জানুয়ারিতে দেশটি থেকে রেমিটেন্স এসেছে ২৯ কোটি ২৫ লাখ মার্কিন ডলার। যা ওই মাসে আসা মোট রেমিটেন্সের ২৩ শতাংশের বেশি।

ফেব্রুয়ারি মাসে প্রবাসী বাংলাদেশিরা রেমিটেন্স পাঠিয়েছে ১১৭ কোটি ৩১ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার। আর গত আট মাসে মোট রেমিটেন্স এসেছে ৯২০ কোটি ৬১ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার।

ফেব্রুয়ারিতে শুধু মধ্যপ্রাচ্য থেকে রেমিটেন্স এসেছে ৭০ কোটি ৮৬ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার। আর ইউরোপ, আমেরিকা ও অন্যান্য দেশ থেকে এসেছে ৪৬ কোটি ৪৫ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার।

ফেব্রুয়ারি মাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেমিটেন্স এসেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে। দেশটি থেকে রেমিটেন্স এসেছে ২২ কোটি ৮২ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার। কুয়েত থেকে ৮ কোটি ৮৭ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার, ওমান থেকে ৫ কোটি ৭১ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার, বাহরাইন থেকে ৩ কোটি ৮১ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার, কাতার থেকে ২ কোটি ১৮ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার এবং লিবিয়া থেকে ৫৭ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়েছে প্রবাসিরা। মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরান থেকে গত আট মাসে কোন রেমিটেন্স আসেনি।

আলোচ্য সময়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে রেমিটেন্স এসেছে ১৯ কোটি ২৩ লাখ ৫০ হাজার ডলার, মালয়েশিয়া থেকে ৮ কোটি ৫৪ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার, যুক্তরাজ্য থেকে ৬ কোটি ৮১ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার, সিঙ্গাপুর থেকে ৩ কোটি ৬১ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার, ইতালি থেকে এক কোটি ৬২ লাখ মার্কিন ডলার, অস্ট্রেলিয়া থেকে ৪১ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার, দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ৪৭ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার,  জার্মানি থেকে ১৮ লাখ, জাপান থেকে ১৪ লাখ ৬০ হাজার এবং হংকং থেকে ২২ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার রেমিটেন্স এসেছে। এ সময়ে বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে রেমিটেন্স এসেছে ৫ কোটি ১৭ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার।

এসএই/এএস