হালে পানি নেই ডিএসই নির্বাচিত সূচকের

0
88
ডিএসই-৩০, dse-30 fall

ডিএসই-৩০, dse-30 fallপুঁজিবাজারে ধারাবাহিক দর পতনে যেন হালে পানি নেই ডিএসই নির্বাচিত ৩০ সূচকের। ভালো মৌলের কোম্পানি নিয়ে গঠিত এ সূচকও বাজারের মন্দাদশায় কুপোকাৎ। বেশ কিছুদিন ধরে টানা পতন হচ্ছে এই সূচকের। সোমবার ডিএস ৩০ সূচক ২৫ পয়েন্ট কমে সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমে আসে।

এদিকে সার্বিকভাবে উভয় বাজারে বড় ধরনের দরপতন হলে, আজকে বিনিয়োগকারীরা ডিএসইর সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করে। এছাড়া দরপতন অব্যাহত থাকলে তারা আরো জোরদার আন্দোলনের হুমকি দেয়।

বিশ্লেষণে দেখা যায়, জানুয়ারি মাসের ১৫ তারিখে এই সূচকের অবস্থান ছিল ১৫৯২ পয়েন্ট। এর পরে পুঁজিবাজার কিছুটা চাঙ্গা হওয়ায় সূচক ধারাবাহিকভাবে বেড়েছে। তবে গত এক মাসে বাজারের উথান-পতনে এই সূচকও কমতে থাকে। গত তিন মাসের মধ্যে আজকে ২৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৫৮৯ পয়েন্টে। যা গত তিন মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন।

সোমবার ডিএস৩০ তালিকাভুক্ত সেরা ৩০টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে মাত্র ৪টি শেয়ারের, অপরিবর্তিত রয়েছে ২টি শেয়ারের এবং দর কমেছে ২৪টি কোম্পানির শেয়ারের। অর্থাৎ আজকে ৮০ ভাগ কোম্পানি শেয়ারের দরপতন হয়েছে।

অথচ কোম্পানিগুলো মূলধন, মুনাফা, লভ্যাংশ এবং পিই রেশিওর দিক থেকে সন্তোষজনক অবস্থানে রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বাজার বিশ্লষকরা বলছেন, পুঁজিবাজারে এখন অস্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করছে। ধারাবাহিকভাবে দরপতনে বিনিয়োগকারীরা দিশেহারা হয়ে কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না।

দীর্ঘ পতনের পর বাজার উথানে ফিরলে বিনিয়োগকারীদের আশা ছিল ভালো মৌলের শেয়ার দর ফিরে পাবে। কিন্তু প্রতিদিনই দর বাড়ছে দূর্বল শেয়ারের। তাই বাজারকে গতিশীল করতে নিয়ন্ত্রক সংস্থার ইতিবাচক ভূমিকা রাখা উচিৎ বলে মনে করেন তারা।

উল্লেখ্য,২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি পুঁজিবাহজারের সেরা কোম্পানিগুলোকে নিয়ে ডিএস৩০ ও ডিএসই এক্স সূচক চালু করা হয়।

এসএ/