মঙ্গলে পাওয়া গেছে সুপেয় পানির হ্রদ

nasa-rover-discovers-ancient-fresh-water-lake-on-marsনাসার প্রেরিত মহাকাশ যান কিউরিসিটি রোভার মঙ্গলগ্রহে এই প্রথম পানযোগ্য পানির একটি প্রাচীন হ্রদ খুঁজে পেয়েছে। নাসার একজন বিজ্ঞানী এ তথ্য জানিয়েছেন। বিজ্ঞানীরা বলছেন প্রায় সাড়ে ৩’শ কোটি বছর আগ থেকে এই লালগ্রহে জীবের অস্তিত্ব থাকতে পারে। খবর দি ইকোনমিকস টাইমের ।

 

মঙ্গলগ্রহে গবেষকদের এই দল মারটেইন বিষুবরেখার কাছাকাছি ‘গেল ক্রেটার’  আগ্নেয়গিরির মুখে ইয়োলোনাইফ বে নামক স্থানের পাশে এই হ্রদটি  খুঁজে পান। এর কাদা-পাথর পরীক্ষা করে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ৩শ ৬০ কোটি বছর ধরে একটি পর্বতের মাঝামাঝিতে ১৫০ কিলোমিটার প্রশস্তের এই হ্রদটি তার অস্তিত্ব ধরে রেখেছে ।

হ্রদটি অনেক শান্ত প্রকৃতির এবং সম্ভবত এখানে জীবের পানযোগ্য পানি ছিল । এছাড়া এখানে  সালফার, নাইট্রোজেন, অক্সিজেন, হাইড্রোজেন এবং কার্বনের মতো জৈবিক উপাদানও ছিল বলে জানান তারা ।

গবেষকরা আরো বলেন, এতে করে  ক্ষুদ্রক্ষুদ্র প্রানীদের বেঁচে থাকার অনুকুলে ছিল এই হ্রদটি।

মাটি-পাথর গুলো সাধারণত নরম শীলা দ্বারা গঠিত এবং শিলার পর্দাগুলো স্তরে স্তরে সজ্জিত। পানির নিচেও একই অবস্থায় থাকে এই ধরণের শিলা দ্বারা গঠিত কাদা-পাথর ।

গবেষণার সমন্বয়কারী এবং লন্ডনের ইমপেরিয়াল কলেজের প্রফেসর সঞ্জিব গুপ্ত জানান, কোটি কোটি বছর আগে জীবজন্তুর অস্তিত্ব রক্ষায় মঙ্গলগ্রহে এমন প্রাচীন হ্রদ আবিস্কার করতে পারলেও আমারা এখনও এখানে কোন প্রানীর অস্তিত্ব খুঁজে পাইনি ।

তিনি আরো জানান, আমাদের গবেষণার দ্বিতীয় ধাপ হচ্ছে এই ক্রেটারের উপরিঅংশ থেকে আরো অনেক পাথর নুড়ি সংগ্রহ করে তা বিশ্লেষণ করে দেখা যে- এই লালগ্রহে কোনো প্রাণীর অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় কি-না?

এর আগের গবেষণায় গুপ্ত এবং গবেষক দল মঙ্গলগ্রহে পানির অস্তিত্বের প্রমাণ খুঁজে পেয়েছিলেন।তবে সাম্প্রতিক এই আবিষ্কার তাদের সে দাবীকে আরও জোরালো করলো।