বৈরী আবহাওয়ায় ধ্বংসাবশেষের সত্যতা মেলেনি, আজ মিলতে পারে

0
61

missing jetস্যাটেলাইটের মাধ্যমে  নিখোঁজ হওয়া মালয়েশিয়ান বিমানের সম্ভাব্য ধ্বংসাবশেষের দুটি বস্তু ধরা পড়ার দ্বিতীয় দিনে দক্ষিণ ভারত সাগরে ফের অনুসন্ধান শুরু হয়েছে।  অস্ট্রেলিয়ান সরকার জানান, বৃহস্পতিবার  স্যাটেলাইটে  ভাসমান ওই দুটি বস্ত ধরা পড়লেও ওই দিন আবহাওয়া প্রতিকূল থাকায় ঠিকভাবে অনুসন্ধান চালানো সম্ভব হয়নি। ফলে শুক্রবার থেকে ওই দুটি  বস্তুকে কেন্দ্র করে অনুসন্ধান শুরু করেছে তারা। খবর বিবিসির।

অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী টনি এবট জানিয়েছেন, শুক্রবার নিখোঁজ বিমানকে খুঁজতে অংশ নিয়েছে তাদের ৫টি সামরিক ও বেসামরিক বিমান।

অস্ট্রেলিয়ার সমুদ্র বিষয়ক দপ্তর বলছে, পার্থের আড়াই হাজার কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে যে দুটি বস্তুখণ্ড ভাসছে বলে উপগ্রহের ছবিতে দেখা গেছে, তার মধ্যে বড়টি আনুমানিক ২৪ মিটার দীর্ঘ। তারা আরও জানিয়েছে,  দক্ষিণ ভারত সাগরে খারাপ আবহাওয়ার কারণে বৃহস্পতিবারের অনুসন্ধান মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।missed-area

প্রতিবেদনে বলা হয়, দীর্ঘ অনুসন্ধানের পর বিভিন্ন দেশের উদ্ধারকর্মীরা একসময় হাল ছেড়ে দিতে বসেছিল। অনেকেই অনুমান করছিল বিমানটি হয়তো ছিনতাই হয়েছে। কিন্ত শেষ পর্যন্ত বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ান অনুসন্ধানকারীরা জানায়, স্যাটেলাইটের মাধ্যমে দক্ষিণ ভারত সাগরের কাছাকাছি নিখোঁজ বিমানের ধ্বংসাবশেষের সম্ভাব্য দুইটি ভাসমান বস্ত খুঁজে পেয়েছে তারা।  তারা ধারণা করছে,  রাডার বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর এটি গতিপথ পরিবর্তন করে  ভারত সাগরেই বিধ্বস্ত হতে পারে।

উল্লেখ্য, বিমানটি চীনের উদ্দেশে ৮ মার্air-debris 1চ শনিবার স্থানীয় সময় ২টা ৪০ মিনিটে কুয়ালালামপুর থেকে ছেড়ে যায়। কিন্ত ১০টা ৩০ মিনিটে এটি বেইজিং-এ পৌঁছানোর কথা থাকলেও এটি পৌঁছায়নি।

ভিয়েতনামী সরকারের ওয়েবসাইটে জানানো হয়, দক্ষিণ ভিয়েতনামের ওপর দিয়ে যাওয়ার সময় বিমানটির রাডার বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের বরাত দিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, দুই সপ্তাহ  ধরে অভিযান চালাচ্ছে তারা।   ৫ জন শিশুসহ ২২৭ জন যাত্রী, এবং ১২ জন ক্রু নিয়ে বিমানটি যাত্রা শুরু করেছিল।

এস রহমান/