নবম সংসদে কোরাম সংকটে অপচয় ১০৫ কোটি টাকা

0
61
CIRDAP

CIRDAPনবম জাতীয় সংসদে সংসদ সদস্যদের দেরিতে উপস্থিতির কারণে কোরাম সংকটে ১০৫ কোটি টাকা অপব্যয় হয়েছে। আর সরকারি দলের ৬০ শতাংশ সংসদ সদস্য অধিবেশনে না থেকেও কোটি টাকার ভাতা নিয়েছেন বলে জানিয়েছে, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)

মঙ্গলবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে সংসদের পর্যালোচনামূলক ‘নবম পার্লামেন্টওয়াচ’ প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে এ কথা জানায় সংগঠনটি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সংসদ সদস্যরা নির্ধারিত সময়ের পরে সংসদের উপস্থিত হওয়ার কারণে কোরাম সংকট হয়। নবম সংসদের ১৯টি অধিবেশনে মোট ২২২ ঘণ্টা ৩৬ মিনিট সময় কোরাম সংকটের কারণে অপচয় হয়েছে। যা প্রতি কার্যদিবসে গড়ে ৩২ মিনিট করে হয়। সংসদ পরিচালনা করতে প্রতি মিনিটে গড়ে ৭৮ হাজার টাকা খরচ হওয়ার কারণে এই ২২২ ঘণ্টায় মোট অপচয় দাঁড়ায় ১০৪ কোটি ৬০ লাখ টাকা। এছাড়া সংসদ সদস্যরা তাদের নিজস্ব দায়িত্ব পালন না করে সংসদে এসে নামাজ কিংবা অন্য কাজে বের হওয়ার সময় হিসেব করলে এ অপচয় অনেক বৃদ্ধি পাবে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয় সংসদ সদস্য হিসেবে একজন সাংসদ মাসিক ভিত্তিতে সম্মানী বাবদ ২৭ হাজার, আপ্যায়ন ৩০০ হাজার, এলাকা ভাতা ৭ হাজার ৫০০, গাড়ি বাবদ ৪০ হাজার টাকাসহ নানান ভাতা মিলে প্রায় ১ লাখ টাকার বেশি সুবিধা ভোগ করেন। এ হিসেবে তারা এক কার্যদিবসের জন্য ৩ হাজার ৫৫৮ টাকা ভোগ করেন। কিন্তু নবম সংসদে সরকারদলীয় ৬০ শতাংশ সংসদ সদস্য সংসদে দুই তৃতীয়াংশ কার্যদিবস উপস্থিত না থেকেই সম্পূর্ণ ভাতা গ্রহণ করেছেন। যাতে অপচয় হয়েছে কোটি কোটি টাকা।

এদিকে, নবম জাতীয় সংসদের ৪১৮ কার্যদিবসের মধ্যে প্রধান বিরোধী দল ৩৪২ কার্যদিবস অনুপস্থিত থাকার পরিপ্রেক্ষিতে আইন প্রণয়নের মাধ্যমে সংসদ বর্জন বন্ধের দাবি জানিয়েছে টিআইবি।

প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়, সংসদ কার্যকর করার ক্ষেত্রে  বিরোধী দলের অংশগ্রহণ অত্যান্ত জরুরি।বিরোধী দল সংসদে অংশ গ্রহণ না করলে সরকারের জবাবদিহিতা নিশ্চিত হয় না। তাই আইন করে সংসদ বর্জন বন্ধ করতে হবে।

প্রতিবেদনে টিআইবি আরও জানায়, একজন সংসদ যাতে ৩০ দিনের বেশি সময় সংসদে অনুপস্থিত থাকলে তার সংসদ সদস্য বাতিল করার বিধান করা উচিত। তাছাড়া সুনিদির্ষ্ট কারণ ছাড়া সংসদের ওয়াক আউটের বিষয়েও বিধান করা উচিত।

এইউনয়ন/এআর