আমিরাতের সাথে সহজ জয় নেদারল্যান্ডের

0
57

Netherlands_cricket_teamটি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের চতুর্থ ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে খুব সহজে হারিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠার রেশে টিকে থাকল নেদারল্যান্ড। জয়ের জন্য ১৫২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে তারা ৭ বল ও ৬ উইকেট অক্ষত রেখেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে।

সোমবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের গড়া ১৫২ রানের জবাবে চমৎকার সূচনা করে নেদারল্যান্ডস। দুই ওপেনার স্টিফেন মেবার্ঘ ও মিচেল স্টোয়ার্ট উদ্বোধনী জুটিতে মাত্র ৬.৪ ওভারে ৬৯ রান যোগ করার পর বিচ্ছিন্ন হন। কামরান শাহজাদের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে স্টোয়ার্ট মাত্র ১৬ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২৬ রান তোলেন। রান আউট হওয়ার আগে পর্যন্ত স্টিফেন মেবার্ঘ অসাধারণ ব্যাটিং করে দলকে জয়ের দিকে এগিয়ে নেন। ইনিংসের দশম ওভারে  আউট হওয়ার আগেই তিনি ব্যক্তিগত খাতায় যোগ করেন  মাত্র ৩৬ বলে ৭ চার ও ২ ছক্কায় ৫৫ রানের ইনিংস। এছাড়াও টম কুপার ২৬ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৩৪ রান তুলে অপরাজিত থাকেন। এছাড়াও উইকেটরক্ষক ওয়েসলি বারেসি ২৪ রান করেন। টিম কুপার অনবদ্য অলরাউন্ড নৈপূণ্যের জন্য ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় মনোনীত হন।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের পক্ষে কামরান শাজাদ চমৎকার নিয়ন্ত্রিত বোলিং করে ৪ ওভারে মাত্র ১৯ রানের খরচায় ২ উইকেট তুলে নেন। শাদিপ সিলভা ৩৮ রানে ১ উইকেট নেন।

এরআগে সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামে  টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় আমিরাত। কিন্তু শুরু থেকেই বিপর্যয়ের পথ পাড়ি দিতে হয় তাদেরকে। প্রথম ২ ওভারেই বিদায় নেন উদ্বোধনী জুটি। অধিনায়ক খুররম খান ও স্বপ্নিল পাতিল প্রাথমিক বিপর্যয় অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছিলেন। কিন্তু ইনিংসের ১১তম ওভারে টিম কুপার আবারও পাল্টে দেন খেলার দৃশ্যপট। ২ বলের ব্যবধানে দুই সেট ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফিরিয়ে আবারও ডাচদের ম্যাচে কর্তৃত্ব এনে দেন তিনি। ফলে ২ উইকেটে ৭৯ রান তোলা আমিরাত ৮০ রানেই ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে।

এর পর কিছুটা প্রতিরোধের আভাস দিয়েছিল পঞ্চম উইকেট জুটি। কিন্তু ইনিংসের ১৬তম ওভারে আবারও জোড়া উইকেট হারায় তারা। ফলে ১৬ ওভার শেষে তাদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬ উইকেটে ১৩১ রান। এবার মাত্র ১ বলের ব্যবধানে ফিরে যান রোহান মুস্তাফা(২০) রান আউট হয়ে এবং এরপর ফন ডান গগটেনের বলে ক্যাচ তুলে দেন মাত্র ১৯ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৩২ রান তোলা শাইমান আনোয়ার। এরপরও খুব বেশী আস্থার সঙ্গে খেলতে পারেননি পরবর্তী ব্যাটসম্যানরা। ফলে এক বল হাতে রেখেই ১৫১ রান করে অল আউট হতে হয় তাদের।

এইউ নয়ন