কয়লা খনির কারণে ঝুঁকির মুখে ক্লাস করছে বড়পুকুরিয়া স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা

0
32
dinajpur

দিনাজপুরদিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কারণে হুমকির মুখে পড়েছে খনি এলাকায় অবস্থিত ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় অবস্থিত বড়পুকুরিয়া স্কুল এন্ড কলেজ ভবন। খনি কর্তৃপক্ষ ক্ষতিপূরণের অর্থ দিলেও অদৃশ্য কারণে আজও স্থানান্তর করা হয়নি কলেজটি। ফলে হাজারো শিক্ষার্থীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করছে।

স্কুল ভবন স্থানান্তরের দাবিতে রোববার বিকেল ৫টায় স্কুল এন্ড কলেজ মাঠেই প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা।

প্রতিবাদ সমাবেশে তারা দাবী করেন, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কারণে এই এলাকাটি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষনা করে ইতিমধ্যেই খনি কর্তৃপক্ষ কলেজটিসহ অত্র এলাকার জায়গা জমি হুকুম দখল করে নিয়েছেন। এ কারণে খনি কর্তৃপক্ষ ক্ষতিপূরণ বাবদ জমির মূল্য ৭০ লাখ ৭৩ হাজার ৫৫০ টাকা ও অবকাঠামো বাবদ এক কোটি ৩৮ লাখ ১৬ হাজার ৬৪০ টাকা কলেজ কর্তৃপক্ষকে পরিশোধ করেছে। কলেজ কর্তৃপক্ষ স্থানীয়দের চাপে গত বছন বৈদ্যনাথপুর মৌজায় ৪৯ লাখ ৪২ হাজার ১৬০ টাকা দিয়ে ২.২৬ একর জমি ক্রয় করছে প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার আন্দোলনকারী নেতা ইব্রাহিম খলিল নিজ উদ্যোগে একটি রাস্তাও তৈরি করে দিয়েছেন।

অথচ কলেজ কর্তৃপক্ষ অদৃশ্য কারণে আজও নতুন জায়গায় কলেজটি স্থাপন না করে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় কলেজের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এ কারণে কলেজের অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা কলেজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছেন।

শিক্ষার্থীদের অভিভাবক বৈদ্যনাথপুর গ্রামের ময়েন উদ্দিন এর সভাপতিত্বে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত। প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন শিবকৃষ্ণপুর গ্রামের বাসিন্দা জাকির হোসেন, বাশপুকুর গ্রামের সাখাওয়াত হোসেন, পাতিগ্রামের বাসিন্দা মোফাজ্জল হোসেন, একই এলাকার ফরহাদ আলী, মতিয়ার রহমান ও বাশপুকুর গ্রামের সোহরাব মণ্ডল প্রমুখ।