বিশ্বকাপের প্রথম নাটকীয় ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের জয়

0
31

Men_Irelandআইসিসি টি-টোয়েন্টি ওয়ার্ল্ড কাপের প্রথম পর্বের বাংলাদেশ বনাম আফগানিস্তান ও হংকং-নেপালের ম্যাচ প্রতিদ্বন্ধিতাপূর্ণ না হলেও তৃতীয় ম্যাচে আয়ারল্যান্ড ও জিম্বাবুয়ে ভালোই জমিয়ে তোলে টি-টোয়েন্টির আমেজ। চার-ছক্কার এ ম্যাচে শেষ বলে এসে  ব্যাটে বলে সংযোগ না করেও ১ রান করে ৪ উইকেটের জয় পায়  আয়ারল্যান্ড।

সোমবার সিলেট বিভাগীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ১৬৪ রানের জয়ের লক্ষে খেলতে নেমে ভালো সূচনা করেও শেষ বলের নাটকিয়তায় জয় পায় আয়ারল্যান্ড।  অধিনায়ক পোটার্ফিল্ড ও পল স্টারলিং ব্যাটিংয়ে নেমে ভালো ভাবেই এগোতে থাকেন জয়ের দিকে। মাত্র ৮ ওভার ২ বলে দলীয় ৮০ রানে ব্যক্তিগত ৩২ রান করে পোটার্ফিল্ড আউট হলেও দাপটের সাথে ক্রিজ আগলে রাখেন পল স্টারলিং। দলীয় ১০০ রানে মাত্র ৩৪ বলে ৬০ রান করে আউট হলে দায়িত্ব নেন জয়সি ও পয়েন্টার । তারা উভয়ে যথাক্রমে ২৩ ও ২২ রান করে আউট আসেন কেভিন ও ব্রেইন। ১৮ ওভারে দলীয়  ১৫৭ রানে ও ব্রেইন আউট শুরু হয় নাটকীয়তা।  ১৯ তম ওভারে ৩ রানে আয়ারল্যান্ডের এক উইকেট গেলে জয়ের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে জিম্বাবুয়ে। তখন দলীয় স্কোর ৬ উইকেটে ১৬২ রান। শেষ ওভারে পানিয়াঙ্গারা বল করতে আসলে জয়ের জন্য ২ রান নিতে বিপদে পড়ে যায় আয়ারল্যান্ড। প্রথম তিন বলে কোন রান নিতে না পারলে চতুর্থ বলে রান নিতে গিয়ে রান আউট হন সুরেসন। এরপর পঞ্চম বলে কুসাক এক রান নিয়ে ম্যাচ টাই করলে শেষ বলে জয়ের জন্য এক রান প্রয়োজন তাদের। কিন্তু শেষ বলে ব্যাটের সাথে বলের সংযোগ না করেই থমসন রানের জন্য দৌড় দিলে বল স্টাম্পে লাগাতে ব্যর্থ হন টেইলর। ফলে শেষ বলের নাটকীয় জয়ে বিশ্ব কাপের লড়াইয়ে টিকে থাকলো আয়ারল্যান্ড। আর জিম্বাবুয়ের এখন ভাগ্য ও পরীক্ষার অপেক্ষা।

জিম্বাবুয়ের পক্ষে পানিয়াঙ্গারা ৩৭ রানে ৪ উইকেট লাভ করেন। আর চাতারা ও উইলিয়ামসন নেন একটি করে উইকেট। ম্যান অব দ্যা ম্যাচ বিবেচিত হন আয়ারল্যান্ডের পল স্টারলিং।

এরআগে সিলেট বিভাগীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিকাল ৩টা ৩০ মিনিটে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিন্ধান্ত নেয় জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক। অধিনায়কের সিন্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে মাঠে নামেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও সিকান্দার রাজা। দু’জনই মারমুখী খেলতে গিয়ে দলীয় ১৪ রানে ১০ রান করে আউট হন রাজা। এর পরই ক্রিজে এসে মাসাকাদজার সাথে জুটি গড়েন দলীয় অধিনায়ক টেলর । মাসকাদজা দলীয় ৫৬ রানে ২১ রান করে ফিরলেও অটল থাকেন তিনি। এরপর উইলিয়ামসন ও সিবান্দা ক্রিজে এসে রানের চাকাকে সচল রাখলেও বেশিক্ষন থাকতে পারেননি। দু’জনই আউট হন ব্যক্তিগত ১৬ করে রান নিয়ে। একপ্রান্তে ধৈর্যের সাথে খেললেও শেষে দ্রুত রান তুলতে গিয়ে বাউন্ডারিতে ক্যাচ দেন টেলর। অবশ্য তখন তার সংগ্রহ ৪৬ বলে ৫৯ । শেষ দু’ওভারে চিগুম্বুরা এবং মারুমা জড়ো ইনিংস খেলে দলীয় রান নিয়ে যান ১৬৩ তে। চিগুম্বুরা  ১৩ বল খরচ করে অপরাজিত থাকেন ২২ রান করে।  আয়ারল্যান্ডের পক্ষে ডকরেইল ও ম্যাকব্রেইন ২টি করে উইকেট নেন।

 এইউ নয়ন