জেফ বেজোস হলেন বিশ্বের সেরা ধনী

নেপথ্যে আমাজনের শেয়ারের মূল্য বৃদ্ধি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

0
122
Jeff-Bezos.jpg
আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস

দুই দশক আগেও তিনি ছিলেন একজন সামান্য বই বিক্রেতা। নিজের বাসার গ্যারাজে বসে তিনি শুরু করেছিলেন অনলাইনে বই বিক্রি। সেই অনলাইনের ব্যবসা এখন মহীরুহে পরিণত হয়েছে। তার প্রতিষ্ঠিত কোম্পানি আমাজন বিশ্বের অন্যতম বড় কোম্পানিতে উন্নীত হয়েছে। এবার তিনি উঠে এলেন বিশ্বের ধনীদের শীর্ষে। মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসকে হটিয়ে আমাজনের কর্ণধার ও প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস এখন বিশ্বের শীর্ষ ধনী ব্যক্তি।

খবর সিএনএন মানি, ইনডিপেনডেন্ট, বিবিসি ও সিএনবিসির।

পুঁজিবাজারে আমাজনের শেয়ারের অব্যাহত দর বৃদ্ধি তাকে ধনীদের শীর্ষে তুলে এনেছে। বৃহস্পতিবার নিউইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন শেষে ৫৩ বছর বয়সী জেফ বেজোসের সম্পদের মূল্য দাঁড়ায় ৯০.৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা বিল গেটসের সম্পদের চেয়ে ৫০ কোটি ডলার বেশি। এর মধ্যদিয়ে জেফ প্রথমবারের মতো বিশ্বের শীর্ষ ধনী হিসেবে উঠে আসেন।

Jeff-Bezos.jpg
আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস

বৃহস্পতিবার নিউইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জে আমাজনের শেয়ারের দাম ১ দশমিক ৬ শতাংশ বেড়ে যায়। তাতে কোম্পানিটির বাজারমূলধন প্রথমবারের মতো ৫০০ বিলিয়ন ছাড়িয়ে যায়। এই  কোম্পানির ১৭ শতাংশ শেয়ারের মালিক বেজোস; যার পরিমাণ প্রায় ৮ কোটি। বৃহস্পতিবার শেয়ারের মূল্যবৃদ্ধিতে বেজোসের সম্পদের মূল্য একদিনেই বেড়ে যায় ১৪০ কোটি ডলার।

 

জেফ বেজোস তার শীর্ষ ধনীর তকমাটি কতদিন ধরে রাখতে পারবেন সেটি দেখার বিষয়। কারণ তার ভাগ্য অনেকটাই আমাজনের শেয়ারের দামের উপর নির্ভর করছে। বাজারে শেয়ারের আরও বাড়লে শীর্ষ ধনী হিসেবে জেফের অবস্থান আরও সংহত হবে। অন্যদিকে শেয়ারের দাম পড়ে গেলে তিনি ধনীদের শীর্ষস্থান থেকে ছিটকে পড়বেন।

এছাড়া আমাজনের শেয়ারের মূল্যের চেয়ে মাইক্রোসফটের শেয়ারের মূল্য অনেক বেড়ে গেলেও তিনি তার জায়গাটি হারাতে পারেন। ফের শীর্ষ ধনী হিসেবে উঠে আসতে পারেন মাইক্রোসফট প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস, যিনি প্রায় ১৪ বছর পর শীর্ষ ধনীর তকমাটি হারিয়েছেন। তিনি ২০০৩ সাল থেকে শীর্ষ ধনীর আসনটি ধরে রেখেছিলেন।

২২ বছর আগে জেফ বেজোসের হাত ধরে যাত্রা হয়েছিল আমাজনের। অনলাইনে বই বিক্রি দিয়ে আমাজনের যাত্রা শুরু হলেও পরে এটি অনেক ডালপালা ছড়িয়েছে। বর্তমানে কয়েক হাজার ক্যাটাগরির পণ্য বিক্রি করে আমাজন। আমাজন ইনকরপোরেশন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ই-কমার্স ও ক্লাউড কম্পিউটিং কোম্পানি হিসেবে সুপরিচিত। হার্ডওয়ার, মিউজিক, স্ট্রিমিং ইত্যাদি খাতেও আমাজনের অবস্থান সুসংহত। গত বছর আমাজন ১৩৬ বিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্য ও সেবা বিক্রি করেছে।

জেফ বেজোস আমাজনের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

যতই দিন যাচ্ছে ব্যবসার পরিধি বড় করছে আমাজন। হচ্ছে আরও বহুমুখী। গত জুন মাসে কোম্পানিটি ১৩ বিলিয়ন বিশ্বের অন্যতম বড় খাদ্য কোম্পানি হোল ফুড কিনে নেয়। এর আগে ২০১৩ সালে কিনেছিল বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী সংবাদপত্র ওয়াশিংটন পোস্ট।