ছাত্রদল নেতার বিরুদ্ধে ঢাবি ছাত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ

0
79
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রদলের এক নেতার বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে শারীরীক নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। যৌতুক দাবি এবং বিভিন্ন কারণে ওই নেতা ঢাবি ছাত্রীকে নির্যাতন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

রোববার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ভাষা বিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী মেহের আক্তার (ছাত্রদল নেতার স্ত্রী) এ অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০১১সালে ২১ফেব্রুয়ারি পারিবারিক সম্মতিতে ১লখ ৪৯হাজার টাকা দেনমোহরে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার কুস্তাবন্দর গ্রামে তার বিয়ে হয়। তার স্বামীর নাম মাসুদ খান। তিনি মানিকগঞ্জ দেবেন্দ্র কলেজে ম্যানেজমেন্ট ফাইনাল ইয়ারের শিক্ষার্থী। তার স্বামী এলাকায় ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে তিনি জানান।

মেহের আক্তার বলেন, বিয়ের সময় তার শশুর বাড়ি থেকে কোন ধরণের যৌতুকের দাবি না করা হলেও কয়েকদিন পর যৌতুকের দাবি করে এবং তার ওপর নির্যাতন করতে থাকে।

বিয়ের ছয় মাস পর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাকে শশুর বাড়ি নিয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও কোন রকম অনুষ্ঠান ছাড়াই নিয়ে যাওয়া হয়। বাসায় নেওয়ার পর তাকে তার স্বামী এবং শশুর, শাশুড়ি মোটর সাইকেল এবং ঘরের ফার্নিচার কিনে দেওয়ার জন্য ২লক্ষ ৮০হাজার টাকা দিতে চাপ দেয় এবং নির্যাতন চালায়।

এরকম বিভিন্নভাবে বিভিন্ন কৌশলে তার স্বামী তার বাবা-মায়ের কাছ থেকে প্রায় ৫লক্ষ টাকা যৌতুক আদায় করে। পরবর্তীতে ব্যবসা করার জন্য আরো ১০লক্ষ টাকা যৌতুক দাবি করলে ওই শিক্ষার্থী তা দিতে অস্বীকার করলে তার স্বামী ও শশুর শাশুড়ি তার ওপর অমানিবক নির্যাতন চালায়। স্বামীর নির্যাতনে তার কোমরের হাড় স্থানচ্যুত হয়।

এরপর ২০১৩ সালের ২২অক্টোবর ওই শিক্ষার্থী মানিকগঞ্জ থানায় ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে’ তার স্বামী ও শশুর শাশুড়ির নামে মামলা করেন। মামলা নং ৩৬/১৪। মামলার ধারা ১১/ক/৩০। মামলার বিষয়টি জানতে পেরে তার স্বামী স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা খন্দকার আব্দুল হামিদ ডাব্লু, তাজুল ইসলাম তারেকের সাথে সম্পৃক্ততা আছে বলে দাবি করে তাদের হুমকি ধামকি দেয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তার স্বামী স্থানীয় ছাত্রদল নেতা মাসুদ খান বলেন, নির্যাতনের বিষয়টি সম্পূর্ণ বানোয়াট ও মিথ্যা। তাকে কোন ধরণের হুমকি ধামকি দেওয়া হয়নি। তিনি অভিযোগ করেন, ওই মেয়ের চরিত্র ভালো না। সে নেশা করে এবং বিভিন্ন ছেলেদের সাথে তার অবৈধ সম্পর্ক আছে। যে কারনে তাকে তালাক দেওয়া হয়েছে।

তবে ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ততা আছে বলে স্বীকার করে তিনি বলেন, রাজনৈতিক বা কোন ভাবেই তার ওপর কোন হুমকি দেওয়া হয়নি।

এএইচ/সাকি