বাদলা দিনে লাল মরিচের ভর্তা আর খিচুড়ি …

অর্থসূচক ডেস্ক

0
437
onion-chili copy
লাল মরিচের পেঁয়াজ ভর্তা।

আকাশ একটু মেঘলা হলেই বাঙালির মন নেচে ওঠে। গ্রামোফোনের যুগে বাদলা দিনে সৌখিন সব ঘরেই বাজতো রবীন্দ্রনাথ; আর ঘরময় খিচুড়ির সুবাস। এই আধুনিক যুগেও বাদলা দিনে বাজে রবীন্দ্রনাথ; সেইসঙ্গে অধিকাংশ ঘরে থাকে খিচুড়ি।

গত কয়েকদিন ধরে বাংলাদেশের প্রায় সব অঞ্চলে বৃষ্টি হচ্ছে। এই সময় খিচুড়ি জাতীয় খাবার ঘরে ঘরে। তবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে খিচুড়ি রান্না এবং পরিবেশনে ভিন্নতা রয়েছে।

খিচুড়ি রান্নায় তুলনামূলক কম সময় লাগে। ঘরে যখন যা থাকে- তা দিয়েই খিচুড়ি রান্না করা যায়। তবে খিচুড়ির বৈশিষ্ট্য এর স্বাদকে পরিবর্তন করে। যেমন: কোনো কোনো অঞ্চলের মানুষ অতিরিক্ত ঝাল কিছু দিয়ে খিচুড়ি খেতে পছন্দ করেন। আবার কেউ কেউ টক কিংবা পেঁয়াজ বা রসুন ভর্তা দিয়ে খিচুড়ি খেতে পছন্দ করেন।

কেউ কেউ টক কিংবা পেঁয়াজ বা রসুন ভর্তা দিয়ে খিচুড়ি খেতে পছন্দ করেন।

 

খিচুড়ির উপকরণ:

পোলাও চাল ২৫০ গ্রাম, মুগের ডাল আধা কাপ, মসুরির ডাল আধা কাপ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, আদা-রসুন বাটা ১ চা চামচ, ধনিয়া গুঁড়া ১ চা চামচ, হলুদ আধা চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, দারুচিনি ও এলাচ ২টি করে, তেল প্রয়োজনমতো, ঘি ১ চা চামচ।

রান্নার পদ্ধতি:

মুগের ডাল আগেই ভেজে রাখুন। চাল ও ডাল একত্রে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। এরপর হাঁড়িতে তেল গরম করে এলাচ দারুচিনি দিন। পেঁয়াজ দিয়ে লাল লাল বেরেস্তা করুন এবং চাল- ডাল দিয়ে দিন এবং ভালো করে ভাজুন। কিছুক্ষন কষানোর পরে চাল থেকে গন্ধ ছড়ালে পানি দিয়ে দিন। মাঝারি আঁচে রাখুন। পানি টেনে আসলে দমে দিয়ে দিন। ১৫ মিনিট দম দিলেই তৈরি হয়ে যাবে আপনার বাহারি ভুনা খিচুড়ি।

শুকনো মরিচ আর পেঁয়াজ ভর্তা:

ভর্তা বাংলার ঐতিহ্যবাহী একটি খাবার। আর খিচুড়ির সঙ্গে এমন ভর্তা খিচুড়ির স্বাদ অনেক বাড়িয়ে দেয়।

উপকরণ: শুকনো মরিচ ৫/৭ টা, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, ধনে পাতা, সরিষার তেল, লবণ।

রান্নার পদ্ধতি: শুকনো মরিচ ভালো করে টেলে নিতে হবে। তবে খেয়াল রাখবেন, যেন পুড়ে না যায়। এরপর পেঁয়াজ কুচি, ধনে পাতা, লবণ, সরিষার তেল একসঙ্গে ভালো করে মাখিয়ে খিচুড়ির সঙ্গে পরিবেশন করুন।

অর্থসূচক/টি এম/এমই/কে এম