ইথিওপিয়ার আমদানীকারককে সম্মাননা দিল প্রাণ

0
60
PRAN

PRANপ্রাণ পণ্য বিপণনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় ইথিওপিয়ায় আমদানীকারক ইওনাথান হাম্বিসাকে বিশেষ সম্মাননা দিয়েছে প্রাণ।

আজ রোববার প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ইথিওপিয়ায় আমদানীকারক প্রতিষ্ঠান ইওহা ইন্টারন্যাশনাল ট্রেডিং এর সত্বাধিকারী ইওনাথান হাম্বিসার হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন প্রাণ এক্সপোর্টস লিমিটেড এর চিফ মো. মিজানুর রহমান।

প্রাণ এক্সপোর্টস লিমিটেড এর চিফ মিজানুর রহমান জানান, ২০১২ সাল থেকে প্রাণ পণ্য ইথিওপিয়ায় রপ্তানি করা হচ্ছে। ইথিওপিয়াসহ আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে প্রাণ পণ্যের চাহিদা ক্রমাগত বাড়ছে এবং বাংলাদেশী পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে সেখানে বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে।  বর্তমানে বাংলাদেশীদের স্থায়ী ভিসা ও দীর্ঘমেয়াদী ব্যবসায়িক ভিসা প্রক্রিয়া সহজ হলে এই সম্ভাবনাকে পরিপূর্ণভাবে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

তিনি আরো বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত বাংলাদেশীরাই নয় বরং সেসব দেশের অধিবাসীদের কাছেও প্রাণ পণ্য ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। প্রাণ পণ্য বর্তমানে বিশ্বের ১০২ টিরও অধিক দেশে রপ্তানি হচ্ছে। প্রাণ এর বিভিন্ন ধরনের জুস ও বেভারেজ, চানাচুর, ঝালমুড়ি, ক্র্যাকার্স ও বিভিন্ন ধরনের স্ন্যাক্স, গুঁড়ো মসলা, সরিষার তেল, আচার ও জ্যাম-জেলী প্রভৃতি ইথিওপিয়াসহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে। তিনি আরো জানান, বর্তমানে আমরা স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি বৈদেশিক বাজার সম্প্রসারণের বিষয়ে ব্যাপকভাবে আশাবাদী। জাতীয় রপ্তানী বৃদ্ধি এবং মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় বিগত ১০ বছর যাবৎ রপ্তানী খাতে দেশের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রিয় পদক ‘শ্রেষ্ঠ জাতীয় রপ্তানী ট্রফি ’ পেয়েছে বলে তিনি জানান।

ইওনাথান হাম্বিসা বলেন, প্রাণ পণ্যের একজন পরিবেশক হতে পেরে আমি গর্বিত। আফ্রিকার দেশসমূহে প্রাণ পণ্যের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। সেখানকার বিভিন্ন সুপারস্টোর এবং গ্লোবাল সুপার চেইনশপগুলোতে প্রাণ পণ্য অত্যন্ত সহজলভ্য বলে তিনি জানান। প্রাণ এর সাথে ব্যবসায়িক কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়াতে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

প্রাণ এক্সপোর্টস লিমিটেড এর হেড অফ মার্কেটিং আরিফুর রহমান, সেলস ও মার্কেটিং এর ঊধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এ সময় উপন্থিত ছিলেন।

সাকি/