‘আরও কয়েক জেলায় নতুনভাবে বন্যার আশঙ্কা’

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
72
maya
ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যাবস্থা্পনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া। ফাইল ছবি

উত্তরাঞ্চলে পানি কমতে শুরু করলেও মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, রাজবাড়ী, ফরিদপুর, মাদারীপুর, চাঁদপুর হয়ে ভোলাসহ কয়েকটি জেলা নতুনভাবে প্লাবিত হতে পারে। এসব এলাকায় বন্যা মোকাবেলায় সরকারের সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। প্রতিটি জেলার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের এই বিষয়ে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ক্রাণ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।

তিনি বলেন, প্রতিটি জেলা প্রশাসনের হাতে আমরা খাদ্য সমগ্রী পাঠিয়ে দিয়েছি। এলাকার প্রয়োজন অনুযায়ী জেলা প্রশাসক চাইলে চাল সরবরাহ করা হবে। ওইসব অঞ্চলের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবেন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। পরিস্থিতি খারাপের দিকে গেলে আমরাও ওই সব এলকায় ছুটে যাবো।

maya
ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যাবস্থা্পনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া। ফাইল ছবি

উত্তরাঞ্চলের পর্যন্ত বন্যায় কত পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে- এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, প্রতিদিন এই সংখ্যা বাড়ছে। তাই এখনও সঠিক সংখ্যা নির্ধারণ হয়নি। সংখ্যাটি ৩ লাখ হতে পারে; আবার ১২ থেকে ১৫ লাখও হতে পারে। তবে যাই হোক সবাইকে ক্ষতির হাত রক্ষা করা সরকারের দায়িত্ব। এই দায়িত্ব পালনে কাজ করছি আমরা।

তিনি বলেন, চলতি মাসে ২, ৩ তারিখ থেকে সিলেট, মৌলভীবাজার ও উত্তরাঞ্চলে আগাম বন্যা শুরু হয়। গত শুক্রবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে জামালপুর, সিরাজগঞ্জ, বগুড়া, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রমাম, লালমনিরহাট ও নীলফামারী জেলার বন্যা প্লাবিত এলাকা সফর করেছি। মানুষের দুঃখ-দুর্দশার কথা শুনেছি। ত্রাণ কার্যক্রম সরেজমিন করেছি।

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, বন্যা প্লাবিত মানুষের জন্য এখন পর্যন্ত ১২ হাজার মেট্টিক টন চাল এবং ৩ কোটি ৭৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দিয়েছি। এছাড়া ৫০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার দিয়েছি। প্রত্যেক জেলায় পানি বিশুদ্ধকরণ মোবাইল গাড়ি পাঠিয়েছি। ৩ হাজার বান্ডিল ঢেউটিন ও ৯ লাখ টাকা দিয়েছি ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের ঘরবাড়ি নির্মাণের জন্য।

তিনি বলেন, আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রিত মানুষের খাবার, চিকিৎসা ও বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা করেছি। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর ইজিপিপি প্রকল্পের আওতায় ক্ষতিগ্রস্তদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। উত্তরাঞ্চলের বন্যার পানি নামতে শুরু করেছে। ফলে উত্তরাঞ্চলের বন্যার পরিস্থিতি উন্নত হচ্ছে।

খালেদা জিয়ার সমালোচনা করে মায়া বলেন, বিএনপি নেত্রী বন্যার্তদের ত্রাণ বিতরণ দূরে থাকুক, বিদেশের মাটিতে পাড়ি জমিয়েছেন। ফাঁকা আওয়াজ না দিয়ে প্রয়োজনে সরকার কাছ থেকে ত্রাণ সমগ্রী নিয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে বিএনপিকে দাঁড়ানোর আহ্বান জানাচ্ছি।

অর্থসূচক/আজম/এমই/