খালেদা জিয়া মার্চ মাস এলেই আঁতকে ওঠেন: মায়া

0
59

mayaমার্চ মাস এলেই খালেদা জিয়া আঁতকে উঠেন বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ।

তিনি বলেন, এ মাসেই স্বাধীনতার প্রতিষ্ঠাতা বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল এবং স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে তিনি বাংলাদেশের জন্ম দিয়েছিলেন।

রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ দলীয় কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে মহানগর আওয়ামী লীগ এ বর্ধিত সভার আয়োজন করে।

ত্রাণমন্ত্রী বলেন, “রাজনীতির মাঠে হেরে গেলে মাশুল দিতে হয় কর্মীদের। আন্দোলনের নামে খালেদা জিয়া  বোমাবাজি ও হানাহানি করেন। পেট্রোলবোমা মেরে নিরীহ মানুষ এমনকি পশুও হত্যা করে তারা”।

জনগণের কাছে প্রত্যাখ্যাত হয়ে বিএনপি ১৯ দল গঠন করেছে এমন মন্তব্য করে মায়া বলেন, “খালেদা জিয়া ১৯দলের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নাম বলতে পারলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব”।

তিনি বলেন, “বিএনপি নেতাদের সাথে কথা বললে তাদের নেত্রী সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ বিশ্রী মন্তব্য শোনা যায়। আমার মনে হয় উনি ১৮ দল নয়, কাজী জাফরের জাতীয় পার্টি নিয়ে সাড়ে ১৮ দলের প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারির নামও বলতে পারবেন না”।

বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, “ঢাকা মহানগরের ২৭ বছরের সভাপতি খোকা পদত্যাগ করেছেন। আমরা মনে করেছিলাম, ব্যর্থতা নিয়ে খালেদা জিয়াই রাজনীতি থেকে পদত্যাগ করবেন। কিন্তু চোরে না শোনে ধর্মের কাহিনি”।

বিএনপির উদ্দেশে নানক বলেন, “নির্বাচনে জিতলে বলবেন সুষ্ঠু হয়েছে আর হারলে বলবেন কারচুপি। এই ডাবল স্ট্যান্ড বাদ দিন। নির্বাচনে জিতলেও স্বাগত, হারলেও স্বাগত জানানোর মানসিকতা নিয়ে আসতে হবে।তিনি দাবি করেন, গত দুটি ধাপে বিদ্রোহী প্রার্থী থাকার ফলে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ভালো ফল করতে পারেনি। ‘কিন্তু তৃতীয় ধাপে বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ন্ত্রণ করতে পারায় আমাদের জয় বেশি হয়েছে। আশা করি, আগামি ধাপগুলোতে আমরা বিজয়ী হব”।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব এম এ আজিজের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় আরও বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুকুল চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক আবদুল হক সবুজসহ নগর আওয়ামী লীগের নেতারা।

এসএসআর