কাঁঠালের বিচিতে লইট্যা শুঁটকি

অর্থসূচক ডেস্ক

0
112
কাঁঠালের বিচি লইট্যা শুঁটকি ভুনা।

কাঁঠাল খুব সুস্বাদু একটি ফল। এর পুষ্টিগুণেরও শেষ নেই। কাঁচা কাঁঠাল রান্না করে আর পাকলে এর শক্ত আবরণ ফেলে ভেতরের কোষ গুলি খাওয়া হয়। কেউ কেউ পান্তা ভাতের সাথে আবার মুড়ির সাথেও কাঁঠাল খেয়ে থাকেন। আর কাঁঠালের বিচি প্রায় সব তরকারির সাথেই বেশ মানিয়ে যায়।

কাঁঠালের বিচি আর লইট্যা শুঁটকির রেসিপি জানাচ্ছে অর্থসূচক-

কাঁঠালের বিচি লইট্যা শুঁটকি ভুনা

উপকরণ:
কাঁঠালের বিচি আধা কাপ, লইট্যা শুঁটকি মাছ ১/২ কাপ, রসুন কাটা আধা কাপ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, মরিচের গুঁড়া ১ চা চামচ, হলুদ সামান্য, কাঁচামরিচ ফালি ৪-৫টি, তেল আধা কাপ, লবণ স্বাদ অনুসারে, জিরার গুঁড়া ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়া আধা চা চামচ।

কাঁঠালের বিচি লইট্যা শুঁটকি ভুনা।

প্রণালী:
শুঁটকি মাছ কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। কাঁঠালের বিচি ঘষে ঘষে পরিষ্কার করে নিতে হবে। এবার কড়াইয়ে তেল দিয়ে রসুন কুচি দিয়ে একটু নেড়েচেড়ে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে একে একে সব মসলা দিয়ে কষিয়ে শুঁটকি ও বিচি দিয়ে কষাতে হবে। খুব ভালো করে দুবার কষিয়ে তেলের ওপর উঠলে নামিয়ে নিন। গরম ভাতের সাথে পরিবেশন করতে পারেন।

খুদের ভাত/বউয়া/বউ খুদ

বউ খুদি, বউ খুদ, খুদের ভাত, খুদের বউয়া, কত নামেই না ডাকি। একেক এলাকায় একেক নামে ডাকা হয়। আমাদের গ্রাম বাংলায় এই খাবারের প্রচলন ছিল সেই অনেককাল আগে থেকেই।

উপকরন:
পোলাও চাল বা আতপ চালের খুদ – ২ কাপ, পেয়াজ কুচি – ৪ চা চামচ, কাঁচামরিচ – ৬-৭ টা, সয়াবিন তেল ও লবণ পরিমানমত, হলুদ গুঁড়া  খুব সামান্য ( শুধু হালকা রংঙের জন্য),  আদা ও রসুন বাটা – ১ চা চামচ এবং পানি পরিমাণমত।

খুদের ভাত/বউয়া/বউ খুদ।

প্রণালী:

প্রথমে চালের খুদ ঝেড়ে বেছে পরিষ্কার করে ধুয়ে নিন। হাঁড়িতে তেল গরম করে পেয়াজ কুচি হাল্কা করে ভেজে নিতে হবে।  এবার এতে বাকি মশলাসহ খুদের চাল দিয়ে দিতে হবে।
এর ভালোভাবে কষিয়ে পানি দিয়ে ঢেকে দিন। কয়েক মিনিট পর ঢাকনা খুলে একবার নেড়ে দিতে হবে, খেয়াল রাখবেন যেন লেগে না যায়। চাল আধা সেদ্ধ হয়ে এলেই চুলার আঁচ কমিয়ে দমে রেখে আবারো ঢেকে দিন।

১০-১৫ মিনিট পরে এসে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন খুদের ভাত আর কাঁঠালের বিচি লইট্যা শুঁটকি ভুনা।

অর্থসূচক/টি এম/কে এম