যুক্তরাজ্যে রপ্তানি বাড়াতে বাণিজ্য বাধা দূর করার আহবান

বাসস

0
47
tofayel-ahmed
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। ফাইল ছবি

যুক্তরাজ্যে রপ্তানি বৃদ্ধির জন্য টেকনিক্যাল ব্যারিয়ার অফ ট্রেড (টিবিটি) ও সেনেটারি এন্ড ফাইটো সেনেটারির (এসপিএস) মতো বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

গতকাল বুধবার যুক্তরাজ্যের ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট বিষয়ক স্টেট মিনিস্টার বোর্ডের( বাটিস) প্রতিনিধিদের সঙ্গেবৈঠককালে এই আহ্বান জানান।

জেনেভা সফররত বাণিজ্যমন্ত্রী এইড ফর ট্রেড গ্লোবাল রিভিউ-২০১৭ সভায় যোগদান শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, উন্নত বিশ্বের কাছ থেকে স্বল্প উন্নত (এলডিসি) দেশগুলোর জন্য ডিউটি ও কোটা ফ্রি এবং রুলস অফ অরিজিন শিথিল সুবিধা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে যুক্তরাজ্যের সহযোগিতা প্রয়োজন।

tofayel-ahmed
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ

তিনি বলেন, যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য ও উন্নয়নের অংশিদার। যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম রপ্তানির স্থান। বাংলাদেশ এ মুহূর্তে ৩৪.৮৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি রপ্তানি করছে, এর মধ্যে যুক্তরাজ্যে রপ্তানির পরিমাণ প্রায় ৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের ফরেন ডাইরেক্ট ইনভেষ্টমেন্টে (এফডিআই) দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। যা মোট এফডিআই-এর প্রায় ১৫.২৬ ভাগ।

ব্রেক্সিটের কারণে বাংলাদেশসহ এলডিসিভুক্ত দেশগুলোর সাথে বাণিজ্যনীতির কোনো পরিবর্তন হবে না, এমন ঘোষণার জন্য বাণিজ্যমন্ত্রী যুক্তরাজ্যের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

তিনি বলেন, সেনেটারি এন্ড ফাইটো সেনেটারি (এসপিএস) এবং টেকনিকেল ব্যারিয়ার অফ ট্রেডের (টিবিটি) মতো প্রতিবন্ধকতাগুলো দূর করা হলে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি পণ্যের রপ্তানি আরো বাড়বে। ব্রেক্সিট পরবর্তি বাণিজ্য ও সহযোগিতা বৃদ্ধির বিষয়ে চুক্তি বা যৌথ ইকোনমিক কমিশন গঠন করলে যুক্তরাজ্য এবং বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা আরো বৃদ্ধি পাবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। বাংলাদেশ সফলভাবে এমডিজি অর্জন করেছে, ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি অর্জন করবে। গত দশকে বাংলাদেশে জিডিপি ছিল গড়ে ৬ ভাগের বেশি, গত বছর অর্জিত হয়েছে ৭.১১ ভাগ। ফলে, বাংলাদেশে দরিদ্র মানুষের হার ২৪.৮ ভাগ এবং হত দরিদ্র মানুষের হার ১১.৯ ভাগে নেমে এসেছে। বাংলাদেশের মানুষের গড় মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়ে এখন ১ হাজার ৬০২ মার্কিন ডলার এবং মানুষের গড় আয়ু ৭১ বছর।

এছাড়া বাণিজ্যমন্ত্রী বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার মহাপরিচালক রোবার্তো আজিভেডো, ইউনাইটেড নেশনস কনফারেন্স অন ট্রেড এন্ড ডেভলপমেন্ট (ইউএনসিটিএডি)- এর সেক্রেটারি জেনারেল মুখিসা কিটুয়ি, ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড সেন্টার (আইটিসি)’র নির্বাহী পরিচালক আরানচা গনজালেজ এবং ওয়াল্ড ব্যাংক গ্রুপের সিনিয়র ডিরেক্টর-এর সাথে পৃথক পৃথক বৈঠক করেন।

এ সময় তিনি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক, সামাজিকসহ সকল ক্ষেত্রে উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেন এবং বাণিজ্য ক্ষেত্রে সহযোগিতা কামনা করেন।

টি