‘বিদ্যুতের দাম বাড়ানো চলবে না’

0
51

cpb-spbবিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে কয়েকটি রাজনৈতিক দল। সিপিবি, বাসদ ও গণফোরামসহ আরও কয়েকটি দলের নেতা কর্মীরা বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবিতে স্লোগান দিচ্ছে। বিক্ষোভকারীরা ‘বিদ্যুতের দাম বাড়ানো চলবে না’, ‘বাড়তি দাম প্রত্যহার করো’ বলে শ্লোগান দিচ্ছে।

পূর্ব ঘোষণা অনুসারে রোববার সকাল থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জড় হতে শুরু করে।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ মার্চ বিদ্যুতের দাম ৬ দশমিক ৯৬ শতাংশ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি)।

এর আগে গত ৩ মার্চ থেকে দাম বাড়ানোর বিষয়ে কমিশনে তিন দিনের গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়।এর পরেই কমিশন দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেয়। কমিশন থেকে জানানো হয় চলতি মার্চ মাস থেকেই বাড়তি দাম কার্যকর হবে।

গণশুনানির সময় সিপিবি, বাসদ ও গণফোরামসহ আরও কয়েকটি দল দাম না বাড়ানোর প্রস্তাব করে। তবে শেষ পর্যন্ত তাদের সে দাবি ও প্রস্তাব পাশকাটিয়েই বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়।

আজকের কর্মসুচিতে বক্তারা দাবি করেছেন, চলতি বছর থেকে বিদ্যুতের দাম কমানোর কথা ছিল। অথচ সরকার দাম বাড়িয়েছে।’

বিদ্যুতের এই বাড়তি দামের প্রভাব অন্য সকল পণ্যের ওপর পড়বে বলে দাবি করেন তারা। আর এর ফলে সাধারণ মানুষের জীবন যাপনের ব্যয় আরও বাড়বে বলে মনে করেন তারা।

অবস্থান কর্মসূচিতে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো প্রতিবাদে নানা শ্লোগান দেওয়া হচ্ছে। শ্লোগানে শ্লোগানে রেন্টাল ও কুইক রেন্টাল বাতিল করার দাবি তোলা হচ্ছে।

বক্তারা বলছে, বন্ধ রাষ্ট্রীয় বিদ্যুৎ প্লান্ট মেরামত, নবায়ন ও সম্প্রসারণ করে বন্ধ বিদ্যুৎ প্লান্ট চালু এবং রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে বৃহৎ বিদ্যুৎ প্লান্ট না করে রেন্টালের নামে বেশি দামে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হচ্ছে। এতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের দাম বাড়ছে। এ দায় জনগণের কাঁধে চাপানো হচ্ছে।

অবস্থান কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন সিপিবির সভাপতি মোজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, গণ ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, সিপিবির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবু জাফর, কেন্দ্রীয় সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স প্রমুখ।

এইচকেবি/