সহিংসতার মধ্য দিয়ে শেষ হলো ভোট গ্রহণ

0
78

Upozila Electionভাঙচুর, কেন্দ্র দখলের চেষ্টা, ব্যালট পেপার ছিনতাই, পুলিশের গুলি, পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়াসহ নানা সহিংসতার মধ্য দিয়ে শেষ হলো চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় ধাপের নির্বাচন।

শনিবার সকাল ৯ টায় শুরু হয় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

সহিংসতা হলেও ভোট গ্রহণ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাচন কমিশনার আব্দুল মোবারক। তিনি জানান, সহিংসতার কারণে ২৬ টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে।

ভোট চলাকালে সহিংসতায় বাগেরহাট সদর উপজেলায় ইসলামী ছাত্রশিবিরের এক কর্মী নিহত হয়েছেন। শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলায় একটি কেন্দ্রে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন রিপন মাঝি নামের একজন পোলিং এজেন্ট। গোলযোগের কারণে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার একটি, যশোরের মনিরামপুর উপজেলার একটি, ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার দুটি কেন্দ্রে ভোট স্থগিত করা হয়েছে। এ ছাড়া কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার একটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ বন্ধ করে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ও কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরের একটি করে কেন্দ্রে এবং যশোরের মনিরামপুরে পুলিশ গুলি চালিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

তৃতীয় পর্বে ৫ হাজার ৪৫৬টি কেন্দ্রে টানা ভোটগ্রহণ চলে। চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে এসব উপজেলায় প্রার্থী হয়েছেন ১১শ’ জনের বেশি।