এই শহরে মরতে মানা!

অর্থসূচক ডেস্ক

0
67
la-lavendio
ফ্রান্সের লা-ল্যাভেনডিউ শহর

বলা হয়, জন্ম-মৃত্যু-বিয়ে আমাদের হাতে নেই; স্বয়ং ঈশ্বরই তার ফেরেস্তাদের দিয়ে এগুলোর নিয়ন্ত্রণ করেন। সৃষ্টিকর্তার নির্ধারিত সময়ে জন্মের পর বিয়ে এবং মৃত্যুর জন্য সৃষ্টিকর্তার সময়ের জন্য অপেক্ষা করা ছাড়া কোনো গতি থাকে না।

তবে জন্ম, বিয়ের ইত্যাদির জন্য নানা আইন তৈরি করে থাকে দুনিয়ার মানুষেরা। তবে একটি আজব আইন হলো, মৃত্যুর উপর নিষেধাজ্ঞা। এই আজব আইন রয়েছে- বিশ্বে এমন স্থানের সংখ্যাও একেবারে কম নয়।

এমনই কিছু জায়গার বর্ণনা তুলে ধরা হলো:

ইটসুকুসিমা, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মোড়া জাপানের এই দ্বীপ

১.ইটসুকুসিমা:

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মোড়ানো জাপানের এই দ্বীপটিতে ইচ্ছা হলে বেরাতে যেতেই পারেন। কিন্তু কোনোভাবেই যমরাজের সঙ্গে অ্যাপয়েন্টমেন্ট ফিক্স করা চলবে না। কারণ এখানকার বাসিন্দারা দ্বীপটিকে পবিত্র বলে মনে করেন। তাই এই জায়গায় কারো মৃত্যু হোক- এমনটা তারা চান না। সেই কারণেই ১৮৭৮ সাল থেকে মৃত্যুর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সেখানকার সরকার।

সেলিয়া, ইতালির সুন্দর একটি শহর

২. সেলিয়া:

ছবির মতো সুন্দর এই শহরটি ইতালিতে অবস্থিত। এখানে সর্বোচ্চ ৫৩৭ জনের বাস; সবার বয়স ৬৫ এর কাছাকাছি। তাই তাদের বেজায় চিন্তা! আইন অনুযায়ী, সেখানে রোগাক্রান্ত হওয়া চলবে না। আর রোগের কারণে মৃত্যু একেবারেই বেআইনি।

সেখানেই থেমে থাকেননি সেলিয়ার মেয়র। আরও একধাপ এগিয়ে আরেকটি নিয়ম পাশ করিয়েছেন তিনি। নিয়ম অনুসারে, এই শহরের বাসিন্দাদের বছরে একবার ফুল বডি চেকআপ করতেই হবে। কেউ এমনটা না করলে দিতে হবে ১০ ইউরো জরিমানা।

স্পেনের ল্যানজারন

৩. ল্যানজারন:

৪০০০ মানুষের বাস হলেও স্পেনের এই শহরে একটিও শববাহী গাড়ির খোঁজ পাওয়া যায় না। কারণ ওই শহরের কবরস্থানে আর কোনো মৃতদেহ কবর দেওয়ার জায়গা নেই। তাই ওই শহরে মৃত্যুতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সরকার। ভুলেও যাতে ল্যানজারন শহরে কারো মৃত্যু না হয়- সেটি সুনিশ্চিত করতে বিশেষ আইনও প্রণয়ন করা হয়েছে।

ফ্য়ালসিয়ানো ডেল মেসিকো

৪. ফ্য়ালসিয়ানো ডেল মেসিকো:

স্পেনের ল্যানজারন শহরের মতোই অবস্থা হয়েছে ইতালির এই শহরের। এখানেও মরদেহ কবর দেওয়ার কোনো জায়গা নেই। ফলে যতদিন পর্যন্ত নতুন জায়গার সন্ধান পাওয়া যাবে না- ততদিন সবার মৃত্যুর উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন ফ্য়ালসিয়ানো ডেল মেসিকো শহরের মেয়র।

ফ্রান্সের সার্পিউরেক্স শহর

৫. সার্পিউরেক্স:

কবরস্থানের আয়তন বাড়ানো যাবে না। আদালতের এমন নির্দেশের পর ছবির মতো সুন্দর ফ্রান্সের সার্পিউরেক্স শহরের মেয়র কিছুটা বাধ্য হয়েই সেখানকার বাসিন্দাদের মৃত্যুতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন।

ব্রাজিলের বিরিটিবা-মিরিন শহর

৬. বিরিটিবা-মিরিন:

জায়গা না থাকলে কী করা যাবে! তাই কোনো উপায়া না পেয়ে বিরিটিবা-মিরিন শহরের বাসিন্দাদের সে জায়গায় মৃত্যুতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ব্রাজিলের সরকার।

ফ্রান্সের লা-ল্যাভেনডিউ শহর

৭. লা-ল্যাভেনডিউ:

পাহাড়-পর্বতে ঘেরা ফ্রান্সের এই শহরের মেয়র সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, সমুদ্রের ধারে কবরস্থান বানানো চলবে না। এদিকে পুরনো কবরস্থানে আর জায়গা নেই। তাই তিনি একটি আইন জারি করেছেন। তাতে বলা হয়েছে, অন্য কোনো দেশ থেকে এই শহরে বেরাতে গিয়ে মৃত্যু হলে মৃতদেহ নিজ দেশে পিঠিয়ে দেওয়া হবে। ভুলেও লা-ল্যাভেনভিউ শহরে কবর দেওয়া চলবে না।

কগনক্স শহর

৮. কগনক্স:

খালি পরে থাকা একটি ছোট বিমানবন্দরকে কবরস্থানে রূপান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগ পর্যন্ত কগনক্স শহরের বাসিন্দাদের মৃত্যুতে নিষেধাজ্ঞা ছিল।

তথ্যসূত্র : ইন্টারনেট

অর্থসূচক/টি এম/এমই/