রংপুরে দপ্তরি নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

0
74
rongpur
রংপুরের মানচিত্র।

rongpurরংপুরের গঙ্গাচড়ায় কুতুব সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরি পদে অযোগ্য প্রার্থীকে নিয়োগ দেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ করেছেন প্রার্থীরা।

শনিবার রংপুর রিপোর্টার্স ক্লাবে এর প্রতিবাদে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন প্রার্থী নুর আমিন মিয়া।

তিনি বলেন, ৯ ফেব্রুয়ারি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে আবেদনের পর আলমবিদিতর ইউনিয়নের কুতুব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ২৫ ফেব্রুয়ারি দুপুর ২টায় মৌখিক পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করেন। ৭ জনকে ওই চিঠি দেওয়া হয়। কিন্তু উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শামীমা আখতার, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কামরুন্নাহার ওই নিয়োগে বিদ্যালয়ের সভাপতির নাতী মিনার হোসেনের কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা নেয়।

তারা এই বিষয়টি দপ্তরকে জানায় এবং ৫ জন প্রার্থী মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ থেকে বিরত থাকে। এতে নিয়োগ বিধিমালা মোতাবেক পরীক্ষার্থী কম উপস্থিত হওয়ায় সভাপতি ও নিয়োগ বোর্ড সভাপতি দুপুরে মৌখিকভাবে পরীক্ষা স্থগিত করার ঘোষণা দেন। কিন্তু বিকেল সাড়ে ৫ টায় আবারও নাটকীয়ভাবে টাকার বিনিময়ে বিধিমালা ভঙ্গ করে ২ জনের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হয়।

এরমধ্যে বিধিমালা অনুযায়ী বয়স না হলেও মাসুদ রানা নামের এক প্রার্থীর আবেদনপত্র নেওয়া হয় এবং মিনার হোসেনের গেটিজ আবেদন হিসেবে রেখে দিয়ে তার মৌখিক পরীক্ষা নেন।

এই বিষয়টি ডিসিসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে জানানোর পরেও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এবং সভাপতি অবৈধভাবে মিনার হোসেনকে ওই পদে নিয়োগের জন্য চূড়ান্ত করছে। এই ঘটনায় এলাকার মানুষ এবং অভিভাবকরা ফুঁসে উঠেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে ওই স্কুলের দপ্তরি নিয়োগ স্থগিত করে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ প্রদানের দাবি জানানো হয়। সেই সাথে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে  জড়িত উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক, সভাপতিসহ সংশ্লিষ্টদের বিচারের দাবি করা হয়। দাবি না মানলে বড় ধরনের আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দেওয়া হয় সংবাদ সম্মেলন থেকে।

এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শামীমা আখতার জানান, ওই নিয়োগের পেছনে টাকা নেওয়া হয়েছে কিনা এরকম কোনো তথ্য নেই। তবে দুপুরে উপস্থিতি কম থাকলেও বিকেলে উপস্থিতি বাড়ায় মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে।

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা কামরুন্নাহার জানান, নিয়োগ বোর্ড সিদ্ধান্ত নেওয়ায় এ বিষয়ে কোন কিছুই বলা তার পক্ষে সম্ভব নয়।

 কেএফ