টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ

0
69
Ctg.port

Ctg.portস্টকহোল্ডারদের বিরোধিতা সত্ত্বেও চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পণ্য হ্যান্ডেলিং অপারেটরদের তালিকাভুক্ত করতে ডাকা টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। তিন দফা দাবি বাতিলের কারণে প্রায় এক বছর তালিকাভুক্তি কার্যক্রম ঝুলে থাকার পর অবশেষে বৃহস্পতিবার টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়।

জানা যায়, ৪৬টি প্রতিষ্ঠান টেন্ডার সিডিউল ক্রয় করলেও বুধবার ৪৩টি প্রতিষ্ঠান দরপত্র জমা দিয়েছে। বৃহস্পতিবার অংশগ্রহণও করেছে এই ৪৩টি প্রতিষ্ঠান। এদের মধ্যে আমদানিকারক, সিএন্ডএফ ও শিপিং এজেন্ট রয়েছে।

একাধিক শিপ হ্যান্ডেলিং অপারেটর দাবি করেছেন, অংশগ্রহণকারী একাধিক প্রতিষ্ঠানের যে পারফরমেন্স এবং ইকুইপমেন্ট সার্টিফিকেট ইস্যু করেছে তা খতিয়ে দেখা হয়নি। কারণ এসব প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশের নিজেদের কোনো গ্র্যাব, পে-লোডার, এবং গিয়ার সামগ্রী নেই।

চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্র ও কুতুবদিয়ায় গভীর সাগরে বছরে প্রায় ২ কোটি টন আমদানি পণ্য খালাস হয়। বেসরকারি শিপ হ্যান্ডেলিং অপারেটররা কাজটি করে থাকেন।

টেন্ডার কমিটির সদস্য ও চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিচালক (পরিবহন) গোলাম ছরওয়ার বলেন, টেন্ডারে এসব প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে যাচাই-বাছাই শেষে মূল্যায়ন কমিটিতে পাঠানো হবে। দ্রুত সময়ের মধ্যে এ প্রক্রিয়াটি শেষ করা হবে। মূল্যায়ন কমিটি বিষয়টি চূড়ান্তও করবেন বলে জানান তিনি।

জেটিতে কন্টেইনার এবং সাধারণ পণ্য খালাসের প্রতিযোগিতামূলক দরপত্রে অপারেটর নিয়োগ দেওয়ার পর বহির্নোঙরে জাহাজ থেকে পণ্য খালাসের জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষ অপারেটর তালিকাভুক্ত করার উদ্যোগ অনুসারে এ টেন্ডারের আহ্বান জানান।